আমাজনের আগুন নেভাতে ৪৪ হাজার সেনা পাঠালো ব্রাজিল

পরিবেশ ডেস্ক: ভয়াবহ দাবানলে পুড়ে যাচ্ছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ খ্যাত বিশ্বের সবচেয়ে বড় রেইনফরেস্ট আমাজন জঙ্গল। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে থাকা অক্সিজেনের ২০ শতাংশের যোগান দেয়া এই জঙ্গলে গেল কয়েকদিনে ১০ হাজার বারেরও বেশি আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে।

এ নিয়ে শুরু থেকেই পরিবেশ রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে দায়ি করে আসলেও শেষ পর্যন্ত টনক নড়েছে ব্রাজিলের ডানপন্থি প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারোর। আমাজনের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্রাজিলের সরকার দেশটির সেনাবাহিনীর প্রায় ৪৪ হাজার সদস্যকে মোতায়েন করা হয়েছে।

গত তিন সপ্তাহ ধরে জ্বলতে থাকা আমাজনের আগুন নেভাতে এবার পুরাদমে কাজ শুরু করেছে ব্রাজিলের সেনাবাহিনী।

দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, আমাজন ঘেঁষা ৬টি প্রদেশে এই ৪৪ হাজার সেনাসদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে আমাজনের আগুনে অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত পোর্তো ভেলহোতে পাঠানো হয়েছে ৭০০ সেনা।

আগুন নিয়ন্ত্রণ কাজে সেনাবাহিনীকে সার্বিক সহায়তা দিতে স্থানীয় সরকারকেও এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ইতোমধ্যে ব্রাজিল সেনাদের দুটি হারকিউলিস সি-১৩০ বিমান যুদ্ধকালীন তৎপরতায় আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করেছে। বিমান দুটি থেকে ফেলা হচ্ছে ৩ হাজার ১৭০ গ্যালন পানি।

স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার আমাজনের আগুন নেভাতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের ঘোষণা দেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনেরো। এর আগে আগুন নিয়ন্ত্রণে দ্রুত ও যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় বিশ্বজুড়ে কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েন এই ডানপন্থি নেতা।

বোলসোনেরোর এই অনাগ্রহের বিষয়টি ফ্রান্সে চলমান জি-৭ সম্মেলনেও উঠে আসে। সেখানে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোর বাণিজ্যিক লেনদেন বন্ধ করার হুঁশিয়ারি দেন। একইসঙ্গে আমাজনের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারলে আর্থিকভাবে ব্রাজিলকে বয়কটের কথাও উঠেছিল জি-৭ ভুক্ত দেশগুলোর শীষ নেতাদের মাঝে।

এরইমধ্যে আমাজনের ভয়াবহ দাবানলকে ‘আন্তর্জাতিক সঙ্কট’ বলে আখ্যা দিয়েছে জার্মানি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডের মতো দেশগুলো। আমাজনের আগুন নিয়ন্ত্রণে ব্রাজিলকে সর্বাত্মক সহায়তার আশ্বাস দিয়ে টুইট করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: পরিবেশ-পর্যটন