উত্তরের সব নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে, সতর্কতা জারি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, রংপুর: অব্যাহত বর্ষণ ও উজানের পাহাড়ী ঢলে উত্তরাঞ্চলের নদ-নদী তিস্তা, ধরলা ও ব্রহ্মপুত্রে বিপদসীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়াও অন্যান্য নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে রংপুরের বিভাগের কুড়িগ্রাম, রংপুর, গাইবান্ধা, নীলফামারী ও লালমনিরহাটের লাখো মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

চার দিকে অথৈ পানির কারণে গবাদি পশুপাখি নিয়ে অনেকটা বিপদে পড়েছেন চরাঞ্চলের খামারি ও চাষিরা। এছাড়াও শিশু, বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধীরা চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে। তবে কোন কোন জেলায় পানিবন্দি মানুষের কাছে এখনও ত্রাণ পৌঁছায়নি বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদিকে চরের অধিকাংশ রাস্তাঘাট ডুবে গিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তিস্তা ভয়ংকর রুপ ধারন করায় তিস্তার চরাঞ্চলে পানি উন্নয়ন বোর্ড বিশেষ সর্তকতা জারি করা হয়েছে।

শুক্রবার তিস্তার পানি প্রবাহ দোয়ানি পয়েন্টে বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার, ধরলার পানি কুলাঘাট পয়েন্টে বিপদসীমার ১৭ সেন্টিমিটার এবং ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপদসীমার ৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। এছাড়াও দুধকুমার, ঘাঘট, করতোয়া, যমুনেশ্বরী নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।  এদিকে নদ-নদী অববাহিকার চর-দ্বীপচরগুলোতে সম্ভাব্য বন্যাবস্থায় নৌডাকাতি প্রতিরোধসহ সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে জেলার পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, চরের বাড়িগুলোর চারপাশে শুধু পানি আর পানি। হঠাৎ করে আসা পানিতে বাঁধ ছুঁই ছুঁই করছে। রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় চরাঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

এদিকে চরের আমন বীজতলা, পাট, ভুট্রা ও সবজি  ক্ষেত নিমজ্জিত হয়েছে। নিচু এলাকার ঘর বাড়ি ডুবে যাওয়ায় গবাদীপশু নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে। এদিকে পানি বাড়ার সাথে সাথে নদ-নদীর ভাঙন তীব্ররুপ ধারন করছে।

রংপুরের গঙ্গাচড়ার কোলকোন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন রাজু জানান, শুধু তার ইউনিয়নেই দেড় হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।

লক্ষ্মীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী জানান, তার ইউনিয়নে ৫’শ এবং মর্নেয়া ইউনিয়নে ১ হাজার , গজঘন্টা ইউনিয়নে ৫’শ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী হাফিজুর রহমান জানান, তিস্তা চর এলাকার লোকজনকে নিরাপদে থাকতে বলা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রংপুর,সারাদেশ