কংক্রিটের রাস্তা তৈরির তাগিদ পরিকল্পনামন্ত্রীর স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‘বিটুমিনের চেয়ে কংক্রিটের রাস্তা বেশি টেকসই হবে। জলবায়ুর কারণে বর্তমানে দেশে বছরের বেশিরভাগ সময়ই বৃষ্টি থাকে। আর বিটুমিনের একমাত্র শত্রু হচ্ছে পানি। এজন্য বিটুমিনের রাস্তা বেশি দিন টেকসই হয় না। তাই ২০ বছরের পরিকল্পনা সামনে রেখে কংক্রিটের সড়ক নির্মাণ করতে হবে।’

রবিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে ‘বাংলাদেশে মানসম্মত সড়ক অবকাঠামো বিনির্মাণ: সমস্যা ও সম্ভাবনা’ বিষয়ক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আমার বিশ্বাস কংক্রিটের রাস্তায় প্রথম ১০ বছর হাতই দিতে হবে না। হয়তবা কংক্রিটের রাস্তায় খরচ প্রথমে বেশি হবে, কিন্তু টেকসই হিসেবে বিটুমিনের খরচের চেয়ে অনেক কম হবে। যদিও সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে, তবুও এর ভেতর দিয়েই কাজ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘সীমাবদ্ধতাকে উপেক্ষা করেই দেশকে উন্নত করতে হবে। তাছাড়া জনগণকে প্রকল্পের সাথে সংযুক্ত করতে হবে। যাদের জন্য প্রকল্প তাদেরকে সংযুক্ত করতে না পারলে আসল উদ্দেশ্য বোঝা যাবে না।’

সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশ্যে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা কিসের আশায় বিটুমিনের সড়ক নির্মাণে আগ্রহী। এটা ভুলে যান। কংক্রিট সড়ক নির্মাণ করে মানুষকে মুক্তি দিন। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দেওয়া সত্ত্বেও আপনারা কেন কংক্রিটের সড়ক নির্মাণ করছেন না। পৃথিবীর অনেক দেশ বিটুমিন ছেড়ে কংক্রিট সড়ক নির্মাণ করছে। বিশ্বের বিভিন্ন বিখ্যাত গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় উঠে এসেছে আগামী ৫ বছরের পর সিঙ্গাপুর ও দুবাইকে পেছনে ফেলবে বাংলাদেশ। তবে তার আগে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত করতে হবে। একটি দেশ অর্থনৈতিকভাবে অগ্রসর হওয়ার পূর্বশর্ত হলো উন্নত যোগযোগের ব্যবস্থা।’

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা বিভাগের সচিব জিয়াউল ইসলাম, আইএমইডি সচিব মফিজুল ইসলাম, সওজ এর প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসান, গবেষক ও কলামিস্ট আবুল মকসুদ, বুয়েটের অধ্যাপক শামসুল হক, নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন প্রমুখ।

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম/

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: জাতীয়