কাশি কমাবে চকোলেট!

স্বাস্থ্য ডেস্ক: শীতে প্রকোপ একটি বেশি থাকলেও কাশির সমস্যা প্রায় সারা বছরই কমবেশি থাকে। কাশির কারণে রাতভর দুচোখের পাতা এক করা যায় না। সাত পদের ওষুধ খেয়েও বুকে জমে থাকা কফ পরিষ্কার করা যায় না। আবার অনেকেই কাশি হলেও ওষুধ সেবন করতে চান না। কাশি সারাতে ওষুধের উত্তম বিকল্প হতে পারে চকোলেট।

সম্প্রতি এ নিয়েই ইংল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব হালের হৃদরোগ ও ফুষফুস বিভাগের প্রধান অ্যালিন মরিস সংবাদমাধ্যম ডেইলিমেল-এ একটি সমীক্ষা তুলে ধরেছেন।

সেখানে তিনি দাবি করেছেন, সর্দি-কাশি সারাতে বাজারে নানা ওষুধ পাওয়া যায়, যার অধিকাংশের অন্যতম উপাদান কোকোয়া। যে ওষুধে কোকোয়া রয়েছে, সেগুলি খেলে তাড়াতাড়ি সুস্থতা লাভ করা যায়। আর কোকোয়া থেকেই তৈরি হয় চকোলেট। তার মানে চকোলেট খেলেও সারতে পারে কাশি।

লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের আরেক দল বিজ্ঞানীর দাবি, সর্দি-কাশির ওষুধে কোডিনও ব্যবহার করা হয়। যাতে মাথা ধরা, কাশি এবং কফের সমস্যা দূর হয়। কিন্তু কোকোয়া তার চেয়ে দ্রুত গতিতে কাজ করে। কোকোয়া খেয়ে মাত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সমস্যা কাটানো যায়। ঘুমেও ব্যাঘাত ঘটে না।

মূলত কাশি সারাতে চকোলেটই দু’ভাবে কাজ করে। প্রথমত, চকোলেট মধুর মতো গলায় আঠালো একটা আস্তরণ তৈরি করে। তাতে স্নায়ুপ্রান্তগুলো ঢাকা পড়ে যায়। তাই ঠান্ডা লাগলেও গলা খুসখুস করা বন্ধ হয়ে যায়।

দ্বিতীয়ত, কোকোয়ার মধ্যে থিওব্রমিন নামের বিশেষ ধরনের অ্যালকালয়েড থাকে, যা কাশির মাধ্যমে বারবার কাফ ফেলার শারীরিক প্রয়োজন কমিয়ে দেয়। সাধারণ ওষুধের চেয়ে কোকোয়া বেশি আঠালো হয়। তাই গলার মধ্য তুলনামূলক মোটা আস্তরণ তৈরি করতে সক্ষম হয়। তাতেও কাশি কমে যায়।

তবে কাশি কমাতে হট চকোলেটে কিন্তু কোনও কাজ হবে না বলে জানিয়েছেন বিশেজ্ঞরা।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: স্বাস্থ্য