খায়রুজ্জামান লিটনের পক্ষেই সুন্দর নগরী উপহার দেওয়া সম্ভব

রাজশাহী অফিস : এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন একজন শিক্ষিত, মেধাবী, দক্ষ ও জননন্দিত নেতা। তিনি রাজশাহী ও রাজশাহীর মানুষকে অনেক ভালোবাসেন। রাজশাহী ও রাজশাহীর মানুষকে ভালোবেসে মেয়র থাকাকালে অনেক উন্নয়ন করেছেন। আগামীতেও শুধু খায়রুজ্জামান লিটনের পক্ষেই সুন্দর নগরী উপহার দেওয়া সম্ভব।

শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে নগরীর উপশহরস্থ নিজ বাসার পাশে আয়োজিত সাবেক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী, রাজশাহী প্রাইভেট টিউশন ফোরামের শিক্ষকবৃন্দ ও নওগাঁ জেলার রাজশাহীতে সবাসকারীদের সাথে ঈদ পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগে সভাপতি, সাবেক সফল মেয়র ও সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সুযোগ পেলে আগামী ৫ বছরে এক লক্ষাধিক ছেলে-মেয়ের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবো। আমি যা করতে পারি, তাই বলি। যা পারি না, তা বলি না। আওয়ামী লীগ ধোকাবাজির রাজনীতি করে না, আমি ধোকাবাজির করি না, আমার বাবা শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনাও ধোকাবাজির রাজনীতি করেননি।

খায়রুজ্জামান লিটন আরো বলেন, আগামীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারো ক্ষমতায় আসবেন বলে বিশ^াস করি। এজন্য আমি সুযোগ পেলে রাজশাহীর উন্নয়ন করা সহজ হবে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি করে গ্যাস রাজশাহীতে এনেছি। আগামীতে বড় বড় প্রকল্প আনতে পারবো। নওগাঁর বাসিন্দা ও রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক প্রক্টর প্রফেসর তারিকুল হাসান বলেন, যদি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ^াসী হন, যদি উন্নয়নে বিশ^াসী হন, তাহলে এই নির্বাচনের গুরুত্ব আছে। আমরা যারা রাজশাহীতে বসবাস করছি, নওগাঁ জেলার মানুষ। তাদের মধ্যে অনেকে এখানকার ভোটার। আমরা রাজশাহীর উন্নয়নের সুযোগ হারাতে চাই না।

সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম খোকন বলেন, আজকে রাস্তাঘাটের কী খারাপ অবস্থা। অথচ লিটন ভাই মেয়র থাকার সময় রাস্তায় বের হলেই ভালো লাগতো। সেই উন্নত রাজশাহীকে দেখতে চাইলে, লিটন ভাইয়ের বিকল্প নাই। মতবিনিময় সভায় আরো বক্তব্য দেন প্রাইভেট টিউশন ফোরামের শিক্ষক উজ্জল হোসেন, মিরাশাদসহ অন্যরা।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রাজশাহী,সারাদেশ