গণহারে চাকরিচ্যুতি বন্ধ করা উচিত: এইচআরডব্লিউ

জাতীয় ডেস্ক: বছরের শুরুতেই বেতন বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলনকে কেন্দ্র করে গ্রেফতারকৃত গার্মেন্ট শ্রমিকদের মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হয়রানি, নির্যাতন-নিপীড়ন বন্ধসহ গণহারে চাকরিচ্যুতি বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ-এইচআরডব্লিউ।

গার্মেন্টস কর্মীদের আন্দোলনের ঘটনাবলী পর্যালোচনা শেষে বুধবার (৬ মার্চ) হিউম্যান রাইটস ওয়াচ এ প্রতিবেদন তৈরি করেছে। প্রতিবেদনে মামলা, গ্রেফতার, চাকরিচ্যুত, নির্যাতন চিত্র তুলে ধরেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, খেয়ালখুশিমতো গার্মেন্ট শ্রমিক ছাঁটাই ও মিথ্যা ফৌজদারি মামলা অবিলম্বে তদন্ত করা উচিত বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের। এছাড়া বাংলাদেশ থেকে বিশ্বের যেসব গার্মেন্ট ব্রান্ড পোশাক কিনে থাকে তাদেরও এসব অভিযোগ তদন্ত করা উচিত। শ্রমিকদের বিরুদ্ধে সব রকমের ভীতি প্রদর্শন বন্ধ করতে বলা উচিত।

পোশাক শ্রমিক সংগঠনের নেতাদের উদ্ধৃতি দিয়ে সংস্থাটি বলছে, ‘এ বছর মধ্য জানুয়ারিতে বিক্ষোভের পর কাজ থেকে খেয়ালখুশিমতো কমপক্ষে ৭৫০০ শ্রমিককে বরখাস্ত করা হয়েছে। যাদেরকে বরখাস্ত করা হয়েছে তাদের অনেকের বিরুদ্ধে ভাঙচুর ও লুটপাতের অভিযোগ আনা হয়েছে। কিন্তু এসব অভিযোগ দৃশ্যত ব্যাপক ও অস্পষ্ট।’

‘৫৫১ জনের বিরুদ্ধে এবং ৩০০০ অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে কমপক্ষে ২৯টি ফৌজদারি মামলা হয়েছে। এতে শ্রমিকরা খেয়ালখুশি মতো গ্রেফতারের মুখে পড়েন। কমপক্ষে ৫০ জন শ্রমিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১১ জনের জামিন অগ্রাহ্য করা হয়েছে।’

সংস্থাটির এশিয়া বিষয়ক উপপরিরচালক ফিল রবার্টসন বলেন, শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ও তাদের অধিকার সুরক্ষিত রাখতে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অঙ্গীকারাবদ্ধ বাংলাদেশ। বাংলাদেশের ফ্যাক্টরিগুলোর উচিত নয় মিথ্যা ফৌজদারি মামলা করা এবং শ্রমিকদের সম্মিলিত আন্দোলনকে দমন করতে গণহারে চাকরিচ্যুতি বন্ধ করা উচিত। সূত্র: ব্রেকিংনিউজ/

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: জাতীয়