গোবিন্দগঞ্জে ইক্ষু খামারে আগুন দেওয়ার সময় দুষ্কৃতিকারী আটক করায় আনসার সদস্যকে পুরস্কৃত করলেন, জেলা কমান্ড্যান্ট

নিউজ প্রতিবেদক : ১৫ জানুয়ারি সোমবার বিকালে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত রংপুর চিনিকলের আওতাধীন সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্ম ইক্ষু খামারের কাটামোড়ের পূর্ব পার্শ্বে প ম দফা আগুন দেওয়ার সময় কর্তব্যরত অঙ্গীভূত আনসার সদস্য মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান আগুনদানকারী দুর্বৃত্ত রদৌসকে আটক করে থানায় সোপার্দ করায় তার এই কৃতিত্বপূর্ণ কাজের জন্য গাইবান্ধা জেলা আনসার ও ভিডিপি’র জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ এফতেখারুল ইসলাম কর্তৃক উক্ত অঙ্গীভূত আনসার সদস্যকে পুরষ্কৃত করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন গাইবান্ধা সদরের উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা সাজ্জাদুর রহমান, ফুলছড়ির উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম ও গোবিন্দগঞ্জের উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আশাদুল ইসলাম।

ঘটনাসূত্রে জানা যায়, ১১ জানুয়ারি রংপুর চিনিকলের আওতাধীন সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্ম ইক্ষু খামারের কাটামোড়ের পূর্ব পার্শ্বে কর্তব্যরত ছিলেন অঙ্গীভূত আনসার সদস্য মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান। হঠাৎ আগুন দেখতে পেয়ে ক্যাম্পে ইনচার্জ পিসি আব্দুর রাজ্জাককে মোবাইলে খবর দেন এবং দ্রুত ঘটনা স্থলে গিয়ে ফেরদৌসসহ কয়েকজন অজ্ঞাত ব্যক্তিকে পালিয়ে যেতে দেখে প্রাণপণ চেষ্টা করে ফেরদৌসকে ধরে ফেলেন। এসময় ফেরদৌস আগুন দেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, তাড়াতাড়ি আখ কাটার সুবিধার্থে আগুন লাগিয়ে শুকনা পাতা পুড়ার জন্য আগুন দিয়েছেন। তিনি আরো জানান রাজু নামে অপরজন এক ব্যক্তিও তার সঙ্গে ছিল। আনসার ক্যাম্পে ইনচার্জ পিসি আব্দুর রাজ্জাক এবং বাগদা ফার্মের নিজস্ব সিকিউরিটি গার্ড নুরুল ইসলাম ও আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থল পৌছে দুর্ষ্কৃতিকারীকে ধরে আনসার ক্যাম্পে নিয়ে এসে গোবিন্দগঞ্জ থানায় খবর দিলে পুলিশ উক্ত দুষ্কৃতিকারীকে নিয়ে যায়। আটককৃত ফেরদৌস গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার গুমানীগঞ্জ ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের রমজান আলীর ছেলে।

ইতোপূর্বে ২৩ ডিসেম্বর সাঁওতাল পল্লী মাদার এলাকায় দুপুর ২টায় ১ম বার অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটে। ঐসময় প্রায় প াশ একর জমির ইক্ষু পুড়ে যায়। ২য় পর্যায়ে ২৫ ডিসেম্বর সাহেবগঞ্জ এলাকায় বিকাল ৩টায় পুনরায় অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটে। ঐসময় প্রায় চল্লিশ একর জমির ইক্ষু পুড়ে যায়। ৩য় পর্যায়ে ৩১ ডিসেম্বর ফার্ম অফিসের পূর্ব পার্শ্বের এলাকায় দুপুর ২টায় অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। ঐসময় প্রায় ত্রিশ একর জমির ইক্ষু পুড়ে যায়। ৩জানুয়ারি চারা বটতলা এলাকায় বিকাল ৩টায় ৪র্থ বার অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটে। ঐসময় প্রায় ষাট একর জমির ইক্ষু পুড়ে যায়। সর্বশেষ ১১ জানুয়ারি কাটা বটলতার পূর্ব পার্শ্বের এলাকায় দুপুর ১২টায় অগ্নি কান্ডের ঘটনা ঘটে। ঐসময় প্রায় আশি একর জমির ইক্ষু পুড়ে যায়।

প্রায় উনিশ শত একর জমির নিয়ে গঠিত বাগদা ফার্ম ইক্ষু ফার্মে নিয়োজিত একজন পিসি, দুই এপিসি ও সাতচল্লিশ আনসার সদস্য অঙ্গীভূত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন এবং ফার্মে নিজস্ব বত্রিশ জন সিকিউরিটি গার্ড দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তাদের সকলের চোখকে ফাঁকি দিয়ে দুর্বৃত্তরা আগুন দিয়ে আসছিল।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রংপুর,সারাদেশ