জবিতে নয়, ঢাবিতে চাকরি করেন জবি ভিসি

সাজ্জাতুল সবুজ, জবি প্রতিনিধি : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৫ অনুযায়ী উপাচার্য , শিক্ষক , কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সরাসরি রাজনীতিতে জড়ানোর নিয়ম নেই।তবে এই নিয়মভঙ্গ করে উপাচার্য, শিক্ষকসহ অন্যান্যরা সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়েছেন । এ বিষয়ে জানতে চাইলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য ড.মীজানুর রহমান বলেন, আমি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করি না ।আমি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা- কর্মচারী নয়। আমি এখানকার নিয়োগকর্তা। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইনে রাজনীতি করার নিয়ম আছে । আর জবিতে যারা রাজনীতি করে তাদের সাথে কথা বলেন।
জানা যায় , উপাচার্য ড.মীজানুর রহমান নিজেই যুবলীগের ১নং প্রেসিডিয়াম সদস্য । তিনি আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শিক্ষা ও মানব সম্পদ উপ-কমিটিরও সদস্য। আওয়ামীলীগের ২০তম সম্মেলনে তিনি কাউন্সিলর হিসেবে অংশ নেন ।তখন তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ছিলেন।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইনের ৪৪নং ধারার ৪ নম্বর উপধারায় উল্লেখ আছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষক , কর্মকর্তা বা কর্মচারী কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের সদস্য হতে পারবেন না । এই আইন লঙ্ঘন করেই জবি উপাচার্য রাজনৈতিক পদ ধরে রেখেছেন।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ওহিদুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় আইনে শিক্ষক ,কর্মকর্তা , কর্মচারীদের রাজনীতিতে জড়ানোর বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে এর কোনো কার্যকারিতা নেই। এ নিয়ে তাদের কাছে এপর্যন্ত কোনো অভিযোগও আসে নি ।
এ বিষয়ে ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের রাজনীতি নিষিদ্ধ থাকার বিষয়টি তার জানা নেই। তবে এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করলে আইন দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: ঢাকা,শিক্ষাঙ্গান