জামায়াত ছাড়তে তৃণমূলের চাপে বিএনপি

বিডি সংবাদ টুয়েন্টিফোর ডটকম : আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন বেগমান করতে তৃণমূলের সঙ্গে মতবিনিময় শুরু করেছে বিএনপি। ধারাবাহিক মতবিনিময়ের অংশ হিসেবে গতকাল প্রথম দিন চার বিভাগের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা।

শুক্রবার (৩ আগস্ট) গুলশানে বিএনপি চেয়াপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এই মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। রুদ্ধদ্বার এ বৈঠক সম্পর্কে আনুষ্ঠানিকভাবে সাংবাদিকদের কিছুই জানানো হয়নি।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার প্রথম সেশনে জামায়াত ছাড়া জাতীয় ঐক্যের প্রসঙ্গটি তুলেন রাজশাহী বিভাগ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু। পরবর্তিতে ১৯টি ইউনিটের নেতারা দুলুর বক্তব্যেকে সমর্থন দিয়ে বক্তব্য রাখেন। তারাও জামায়াত ছাড়া জাতীয় ঐক্যের পক্ষে নিজেদের মতামত দলের নীতি নির্ধারকদের কাছে তুলে ধরেন।

জামায়াত প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতাদের বক্তব্য, যদি জামায়াতের জন্য জাতীয় ঐক্য গড়তে সমস্যা হয় তাহলে তাদের বাধ দিচ্ছেন না কেন? জামায়াতকে বাদ দিয়ে অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও বামদলগুলোকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য তৈরি করুন।

বৈঠক সূত্রে আরও জানা গেছে, তৃণমূলের নেতারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবি আদায় আন্দোলন ছাড়া সম্ভব নয়। আর বেগম জিয়া ছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনও নয়। এজন্য তারা, শর্ট টাইমের আন্দোলনের পরামর্শ দিয়েছেন।

পাশাপাশি সিলেট নির্বাচনের প্রসঙ্গে টেনে জোট শরিক জামায়াতে ইসলামীর অবস্থান নিয়ে মতবিনিময় সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। তৃণমূল নেতাদের মধ্যে ৩০ জন নেতা তাদের নিজেদের মতামত ব্যক্ত করেন। তাদের কেউ কেউ ২০-দলীয় জোট থেকে জামায়াতকে বের করে দেয়ারও দাবি জানান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমরা পরিষ্কার করে বলেছি- জামায়াতের কারণে আমাদের জাতীয় ঐক্য হচ্ছে না। এখানে জামায়াতই সবচেয়ে বড় বাধা। যে কারণে বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ড. কামাল হোসেন, আ স ম রব এবং মাহমুদুর রহমান মান্নারা জাতীয় ঐক্যের ডাকে সাড়া দিচ্ছেন না।’

‘নেত্রীর মুক্তি ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জামায়াতকে বাদ দিয়ে বিএনপিকে ভাবতে হবে। এটা আমরা কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে বলেছি। তারা সহমত প্রকাশ করেছেন। নোট করেছেন’ যোগ করেন তৃণমূলের এই নেতা।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে এতে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি প্রমুখ।

অন্যদিকে, তৃণমূল নেতাদের মধ্যে জেলা ও মহানগর কমিটির সুপার ফাইভ-সভাপতি, সিনিয়র সহসভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন।

জানতে চাইলে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, ‘নেত্রীর মুক্তি, সিলেট নির্বাচন, সংগঠনকে কিভাবে শক্তিশালী করা যায় সেই বিষয়ে আমরা মতামত দিয়েছি। সিনিয়র নেতারা তা নোট করেছেন’।

তিনি বলেন, ‘আমরা পর্যায়ক্রমে উপজেলা, পৌরসভা পর্যায়ের নেতাদের মতামত নেয়ার জন্যও অনুরোধ করেছি।’

বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য নাম না প্রকাশ করে ব্রেকিংনিউজকে বলেন,বিএনপি চেয়ারপারসন গণতন্ত্রের মাতা বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচন নয়। বৈঠকে এটাই সবার প্রথম ইস্যু ছিল।এছাড়াও আগামী দিনের আন্দোলন সহ-নানা বিষয়ে আলোচনা হয়েছে এগুলো নিয়ে বলার কিছু নেই।’

এছাড়া গতকাল বিকেলে খুলনা ও বরিশালের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান ব্রেকিংনিউজকে জানান,শনিবার(৪ আগস্ট) সকালে চট্টগ্রাম, কুমিল্লা ও সিলেট বিভাগ এবং বিকেলে ঢাকা, ময়মনসিংহ ও ফরিদপুর বিভাগের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতারা।

ব্রেকিংনিউজ/

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রাজনীতি