দিয়ে আসেন উজাড় করে, আনতে পারেন না কিছুই: প্রধানমন্ত্রীকে ফখরুল

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম : প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী যতবার ভারত সফরে যান ততবার আমরা হতাশ হই। কারণ উনি ভারতকে দিয়ে আসেন উজাড় করে, কিন্তু আনতে পারেন না কিছুই।’

বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এই মন্তব্য করেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সমাবেশটির আয়োজন করা হয়।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ও তিস্তার পানি বণ্টন বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি ৮টি সমঝোতা স্মারক সামনে রেখে বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে নয়াদিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনদিনের সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আগামী শনিবার (৫ অক্টোবর) দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসবেন প্রধানমন্ত্রী।

এ প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে প্রধানমন্ত্রী গেছেন ভারতে। আমরা সবসময় আশা করে থাকি, ভারতের সঙ্গে এই সরকারের নাকি সুউচ্চ সম্পর্ক। যতবার প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরে যান ততবার আমরা হতাশ হই। যতবার তিনি ভারত সফর থেকে ফিরেন ততবার দেখি আমাদের মূল সমস্যাগুলোর কোনও সমাধান হয় না। তিনি দিয়ে আসেন একেবারে উজাড় করে, আনতে পারেন না কিছুই।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সীমান্তে হত্যা সমস্যার সমাধান হয় না, তিস্তার পানির সমস্যার সমাধান হয় না, ফারাক্কার বাঁধ খুলে দেয়ায় আমাদের দেশ বন্যায় তলিয়ে যায়, বাণিজ্যের মধ্যে যে ভারসাম্যহীনতা আছে তারও সমাধান হয় না।’

ফখরুল বলেন, ‘জনগণ চায় তিস্তাসহ সকল অভিন্ন নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা বাংলাদেশ পাবে। আমরা আশা করবো সীমান্তে যেন হত্যা বন্ধ হয়ে যায়।’

কারও অনুকম্পায় খালেদা জিয়া মুক্ত হবে না জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তিনি অবশ্যই তাঁর যে হক, ন্যায্য অধিকার, জামিন পাওয়ার অধিকার, সেই অধিকারেই মুক্ত হবেন। বেআইনি, মিথ্যা মামলা দিয়ে আর যাই করা হোক, খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা যাবে না। জনগণ অবশ্যই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে তাদের প্রিয় নেত্রীকে বের করে নিয়ে আসবে।’ব্রেকিংনিউজ

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে ক্যাসিনো নিয়ে অনেক লাফালাফি হচ্ছে। ক্যাসিনোর চেয়ে যে বড় সম্পদ- ‘ভোটের অধিকার’ স্বাধীন মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার অধিকার, সেইসব অধিকারগুলো তো লুট হয়ে গেছে। সেজন্য আজকে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনতে হবে।’

সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদের সভাপতিত্বে মানবন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা: এ জেড এম জাহিদ হোসেন, সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজী, সহ-তথ্যবিষয়ক সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক কৃষিবিদ শামিমুর রহমান শামীম প্রমুখ।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রাজনীতি