পলাশবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদের অপসারন দাবীতে ফুঁসে ওঠেছে এলাকাবাসী!!

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:: ক্ষমতার অপব্যবহার দাম্ভিকতা, ক্ষমতাশীন দল আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী,বীরমুক্তি যোদ্ধা,ইউপি চেয়ারম্যান, সাংবাদিকসহ অসংখ্য নিরিহ মানুষের বিরুদ্ধে মামলা, কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাধারন সম্পাদক ও আসন্ন উপনির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী এ্যাড উম্মে কুলসুম স্মৃতির উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় নিরব ভুমিকা পালনসহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে পলাশবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদার রহমান মাসুদের বিরুদ্ধে।

ঘটনার বিবরনে জানাযায় আসন্ন উপনির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী কৃষকলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাধারন সম্পাদক এ্যাড উম্মে কুলসুম স্মৃতির নির্বাচনী প্রচারনা চলাকালে বরিশাল ইউপির সাবদিন নয়া বাজারে হামলা চালায় বিএনপি নেতাকর্মীরা।ঘটনার প্রায় ১০ দিন অতিবাহিত হলে ও এঘটনায় উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি বলে আওয়ামীলীগ নেতারা জানান।উল্লেখ্য বিগত রাজনৈতিক সহিংসতার সময় এই স্থানে পলাশবাড়ী থানার দুই ওসির হাত-পা ভেঙ্গে দিয়েছিল সন্ত্রাসীরা।

মহদীপুর ইউনিয়ন আওয়ামিলীগ সাধারন সম্পাদক মহিউজ্জামান খোকন জানান গত সপ্তাহে নির্বাচনী প্রচারনায় অংশ গ্রহণ করা অবস্থায় কোন প্রকার তদন্ত ছারাই তার বিরুদ্ধে মামলা গ্রহন করা হয়।নির্বাচনকে বাধাগ্রস্থ ও আওয়ামীলীগ নেতাদের থামাতেই এমন সাজানো মামলা বলে তিনি জানান।একাত্তরের রনাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা বর্তমানে মানষিক ভারসাম্যহীন মমতাজ উদ্দিন বলেন কোন তদন্ত ছারাই তার বিরুদ্ধে মামলা গ্রহন করেছে বর্তমান ওসি।কি পেলাম এই দেশ স্বাধীন করে।

হোসেনপুর ইউপি সদস্য ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা পল্লব মেম্বার জানান সামান্য একটি ঘটনায় নির্বাচনের ঠিক আগ মুহুর্তে তার বিরুদ্ধে মামলা গ্রহন করে ওসি। পুলিশী হয়রানীর কারনে বর্তমানে সক্রিয় ভাবে প্রচার প্রচারনায় অংশ গ্রহন করতে পারছিনা!

হোসেনপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা তৌফিকুল আমিন মন্ডল টিটু বলেন, নির্বাচনে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের আটকিয়ে রাখতেই তার বিরুদ্ধে মামলা গ্রহন করা হয়েছে।তবু ও পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে নির্বাচনী প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছি।

পলাশবাড়ী প্রেসক্লাব সাধারন সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রতন বলেন কোন প্রকার তদন্ত ছারাই কেবল মাত্র তাকে হয়রানি করতেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা গ্রহন করে ওসি।

সাংবাদিক আশরাফুজ্জামান বলেন পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়েছিলাম বরিশাল ইউপির কয়ারপাড়া গ্রামে যাই। নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানতে পেরেছি ওসি মাসুদ সাহেব জনৈক্য এসআইকে চাপ প্রয়োগ করে তিন সাংবাদিকের নামে জিডি করেছেন।

আওয়ামীলীগ নেতা নির্মল মিত্র জানান বর্তমান অফিসার ইনচার্জ কর্মকান্ড বেশ সমালোচিত।যা বাংলাদেশ পুলিশের জন্য অশুভ।

উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক গোলাম সরোয়ার প্রধান বিপ্লব বলেন ওসি মাসুদ সাহেব বিএনপি জামায়াতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছেন।নির্বাচনের আগে মামলা দিয়ে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের কোন ঠাসা করে রেখেছেন।

গাইবান্ধা জেলা বাস মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সোবহান বলেন ওসির প্রতিটি কর্মকান্ড প্রশ্ন বিদ্ধ! উপনির্বাচনে তার ভুমিকা জামায়াত বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়ন করা।থানা এখন দালালের আড্ডা খানায় পরিনত।

(নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) গনধর্ষন মামলার বাদী বলেন এজাহার দাখিলের দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলে ও থানায় মামলা নেয় নি ওসি সাহেব।

এ ব্যাপারে জানতে জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলামের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে মতামত গ্রহন করার চেষ্টা করে সম্ভব হয় নি!

এদিকে পলাশবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদার রহমানের এহেন কর্মকান্ডে ফুটে ওঠেছে গোটা পলাশবাড়ীবাসী।নির্বাচনের তফশিল ঘোষনার ফলে সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকায় ভুক্তভোগীরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করতে পারছেনা।তবে নির্বাচন পরবর্তী সময়ে তারা ওসির অপসারন দাবী করে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করবেন বলে জানাযায়। তারা আরো জানায় বর্তমান অফিসার ইনচার্জ মাসুদার রহমান মাসুদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে বিভাগীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য পুলিশ সুপার,রংপুর রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি,আইজিসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রংপুর,সারাদেশ