শিরোনাম

বিসিবির অনুমোদন, সাব্বির ৬ মাস নিষিদ্ধ

স্পোর্টস ডেস্ক : আঁচ করাই যাচ্ছিল, বড় ধরনের শাস্তি পেতে যাচ্ছেন জাতীয় দলের হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান। বাকি ছিল কেবল আনুষ্ঠানিকতা। গত ১ সেপ্টেম্বর (শনিবার) শুনানি শেষে একের পর এক শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এই ব্যাটসম্যানকে ছয় মাস নিষিদ্ধ করার জন্য সুপারিশ করেছিলো বিসিবি (বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড) ডিসিপ্লিনারি কমিটি।

দুই দিনের ব্যবধানে তাদের সেই সুপারিশে অনুমোদন দিয়েছেন বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এতে করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে আগামী ছয় মাস নিষিদ্ধ থাকছেন সাব্বির। তবে এই সময়ে তিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে অংশ নিতে পারবেন।

বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন সোমবার (৩ সেপ্টেম্বর) এমন তথ্য জানিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে সুজন বলেন, ‘সাব্বিরের শাস্তি প্রসঙ্গে শৃঙ্খলা কমিটি যে সুপারিশ করেছিল তাতে সভাপতি সম্মতি দিয়েছেন। ১ সেপ্টেম্বর থেকে তার এই শাস্তি কার্যকর হবে।’

এর আগে একাধিকবার বেপরোয়া আচরণের জন্য অল্পবিস্তর সাজা পেয়েছিলেন সাব্বির। সেসময় শোধরানোর সুযোগ দিয়ে সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরচলাকালীন এক ভক্তকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে নতুন করে আলোচনায় আসেন তিনি। এতে উঠে আসে তার আগের সব অপকর্মের খতিয়ান। এই সময় ব্যাটের রান খরা মিলিয়ে পরিস্থিতি অনুকুলে রাখতে পারেননি ২৬ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান।

গত ডিসেম্বরে জাতীয় লিগের ম্যাচ চলার সময় কিশোর দর্শককে মারধরের অভিযোগে ২০ লাখ টাকা জরিমানা ও ৬ মাস ঘরোয়া ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তিনি। ২০১৬ সালের বিপিএলে রাতের বেলা হোটেল কক্ষে নারী অতিথি নিয়ে যাওয়ায় ১৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছিল তাকে।

গত জুনে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের সময় সতীর্থ মেহেদী হাসান মিরাজকে শারীরিকভাবে আঘাত করার অভিযোগও উঠেছিল তার বিরুদ্ধে।

এসব জানা ঘটনার বাইরেও তার বিরুদ্ধে আরও অভিযোগের খবর শোনা যায়। চলতি বছর সিলেটে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচের আগেও কোন এক গুরুতর শৃঙ্খলাভঙ্গ করেছিলেন। যার জেরে তাকে সেই ম্যাচের একাদশে রাখা হয়নি।

এসব ঘটনায় কখনো হালকা শাস্তি, কখনো সতর্ক করা হয়েছিল সাব্বিরকে। তবে ধারাবাহিকভাবে নেতিবাচক ঘটনায় জড়িয়ে থাকায় এই ক্রিকেটারকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে রাখায় শ্রেয় মনে করছে বিসিবি।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার সাব্বিরকে ছাড়াই এশিয়া কাপের দল ঘোষণা করা হয়। সেদিনই গণমাধ্যমে সাব্বিরের বাদ পড়ায় শৃঙ্খলাভঙ্গের প্রভাব থাকার কথা জানিয়েছিলেন বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান। অভিযোগ প্রমাণিত হলে বোর্ড চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের দিকেই যাবে বলে স্পষ্টও করেছিলেন তিনি, ‘যদি আমরা মনে করি একটা জিনিস করা উচিত না কোনো খেলোয়াড়ের, সে যদি বারবার তা করতে থাকে, তখন কড়া সিদ্ধান্ত নিতেই হবে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আমার কাছে একটাই জাতীয় দলে না রাখা। সে জাতীয় দলে খেলতে পারবে না।’

ব্রেকিংনিউজ/

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: খেলাধুলা,বিনোদন