বুদ্ধ পূর্ণিমায় জঙ্গি হামলার আশঙ্কা: সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে পুলিশ

জাতীয় ডেস্ক: বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বুদ্ধ পূর্ণিমাকে ঘিরে জঙ্গি হামলার সুনির্দিষ্ট কোনও আশঙ্কা না থাকলেও আগাম প্রস্তুতি হিসেবে দেশের প্রত্যেক পুলিশ সদস্যকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে থেকে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার (ডিএমপি) আছাদুজ্জামান মিয়া। পাশাপাশি ডিএমপির প্রতিটি থানা ও পুলিশ ফাঁড়ির নিরাপত্তা জোরদার করতে বলেছেন তিনি। এছাড়া নগরীর বিভিন্ন এলাকায় নিয়মিত ব্লক রেইড ও তল্লাশি কার্যক্রম বাড়াতেও বলেছেন ডিএমপি কমিশনার।

এ উৎসবকে সামনে রেখে নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। পুলিশ বলছে, আগামী ১৮ মে অনুষ্ঠিতব্য বুদ্ধ পূর্ণিমাকে ঘিরে ইতোমধ্যে সব ধরণের নিরাপত্তামূলক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ডিএমপি।

সম্প্রতি ডিএমপি সদর দফতরে অনুষ্ঠিত মাসিক অপরাধ সভায় কমিশনার এই নির্দেশনা দেন। সভায় ঢাকার ৫০ থানার ওসিসহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা, গোয়েন্দা পুলিশ ও সিটিটিসির কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে উপস্থিত থাকা নির্ভরযোগ্য একজন ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ডিএমপির দায়িত্বশীল সূত্র ব্রেকিংনিউজকে জানায়, সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের মসজিদ এবং শ্রীলংকায় গির্জা ও হোটেলে হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ধর্মীয় উপাসনালয়গুলোর নিরাপত্তায় বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছে ডিএমপি। বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা নজরদারিও।

আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিয়ে জঙ্গিবিরোধী কার্যক্রমে সাধারণ মানুষকে সম্পৃক্ত করতে গত ২৮ এপ্রিল থেকে ৪ মে পর্যন্ত ডিএমপি জঙ্গিবিরোধী গণসংযোগ সপ্তাহ পালন করে। এছাড়া নগরীর গুরত্বপূর্ণ স্থানে পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকে পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন।

ডিএমপির মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভা সূত্র জানায়, নাশকতার জন্য সব সময় জঙ্গিরা জনাকীর্ণ স্থানগুলোকে টার্গেট করে। তাই গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও স্থাপনায় সিসিটিভি সংখ্যা বাড়িয়ে সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ের মধ্যে রাখতে বলা হয়েছে। ভাড়াটিয়া স্থান পরিবর্তন করলে বাড়িওয়ালারা থানায় তথ্য জানাচ্ছেন কিনা তা নিয়মিত পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে এমন নির্দেশনা দিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘কোনো কোনো থানা এটা করছে না, যা ঠিক নয়।’ সঠিক তদারকির মাধ্যমে ভাড়াটিয়া তথ্য আপডেট করার জন্য জোর নির্দেশনা দেন কমিশনার। একই সাথে বিট পুলিশিং কার্যক্রমকে আরও বেশি এগিয়ে নেওয়ার জন্য পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন তিনি।

এদিকে গত শনিবার ভারতীয় জি-নিউজের এক প্রতিবদেনে আগামী ১৮ মে বুদ্ধ পূর্ণিমায় পশ্চিমবঙ্গ বা বাংলাদেশে জঙ্গিরা হামলা করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হয়েছে। ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো’র (আইবি) বরাত দিয়ে আইএসপন্থী জঙ্গি সংগঠন জেএমবি ‌‌‘ফিদায়ী’ হামলা চালাতে পারে বলে সতর্ক করেছে। এছাড়া গত মাসে শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনার পর রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে এমনিতেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

এরমধ্যেই গত ২৯ এপ্রিল গুলিস্তান এলাকায় তিন পুলিশ সদস্যদের ওপর বোমা হামলা করে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। ঘটনার পর সেই হামলার দায় স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছে আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট বা আইএস। ওই দিন সকালেই এলিট ফোর্স র‌্যাব রাজধানীর মোহাম্মদপুরে একটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালালে দুই জঙ্গি আত্মঘাতী হয়। এছাড়া আল-কায়েদা সমর্থিত বালাকোট মিডিয়ার মাধ্যমে জঙ্গিদের ‘লোন উলফ’ হামলার পরিকল্পনার খবরও প্রকাশ হয়েছে সম্প্রতি।

তবে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিচালক এআইজি (মিডিয়া) মো. সোহেল রানা ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আসন্ন বুদ্ধ পূর্ণিমা উদযাপনকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী ও নাশকতামূলক হামলার সুনির্দিষ্ট কোনও আশঙ্কা নেই। তারপরও, বাড়তি সতর্কতা হিসেবে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে নজরদারি বাড়াতে বলা হয়েছে। বাড়তি সতর্কতা অবলম্বনের পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিশেষ করে বৌদ্ধ মন্দিরসহ সব ধর্মীয় উপাসনালয়গুলোকে সুরক্ষিত রাখার জন্য পুলিশের সকল ইউনিটকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

এই কর্মকর্তা বলেন, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট স্থাপন করে তল্লাশি চালাতে বলা হয়েছে। স্থানীয় ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ ও জনগণের সঙ্গে পরামর্শ করে নিরাপত্তা পরিকল্পনা সাজাতে বলা হয়েছে। সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে কমিউনিটি পুলিশিং ও স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তা নিতেও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি ডিএমপির একজন পুলিশ সদস্য ইয়াবাসহ গ্রেফতার হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ডিএমপি কমিশনার। তিনি বলেছেন, ব্যক্তি পুলিশের অসদাচরণ বা অপরাধমূলক কোনও কর্মকাণ্ডের দায় বাংলাদেশ পুলিশ নেবে না। যেসব সদস্যের বিরুদ্ধে এরকম অভিযোগ পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা এবং ফৌজদারি আইনে শাস্তি নিশ্চিত করার নির্দেশনা দেন তিনি।

ডিএমপির উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান ব্রেকিংনিউজকে জানান, অপরাধ সভায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য বিভিন্ন নির্দেশনা, বিভিন্ন ধরনের অপরাধ পর্যালোচনা করা হয়েছে। একইসঙ্গে ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ পুলিশ সদস্যদের পুরস্কৃত করা হয়েছে।সূত্র: ব্রেকিংনিউজ/

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: জাতীয়