নির্বাচিত খবর

ভোটে জিতলেও মেয়রের দায়িত্ব পাচ্ছেন না আতিক-তাপস!

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম: ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে একচেটিয়া জয় পেয়েছেন নৌকার দুই মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ও শেখ ফজলে নূর তাপস। কিন্তু ভোটে জিতলেও এখনই মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পাচ্ছেন না তারা। এজন্য আগামী মে মাস পর্যন্ত তাদের অপেক্ষা করতে হবে। তবে তার আগেই দুই সিটির নবনির্বাচিত মেয়র, সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলরের ফলাফলের গেজেট প্রকাশ ও শপথ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়ে যেতে পারে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সূত্র জানিয়েছে, এরইমধ্যে নবনির্বাচিতদের নাম-ঠিকানাসহ ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশের প্রস্তুতি চলছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ শেষে কমিশনের অনুমোদনের জন্য চলতি সপ্তাহেই তা পাঠানো হতে পারে। আর শপথ অনুষ্ঠানের বিষয়টি তদারকি করবে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

এর আগে গেল শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে নৌকা মার্কায় ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোট পেয়ে মেয়র পদে নির্বাচিত হন আতিকুল ইসলাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল পান ২ লাখ ৬৪ হাজার ১৬১ ভোট।

অন্যদিকে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে ৪ লাখ ২৪ হাজার ৫৯৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন শেখ ফজলে নূর তাপস। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী ইশরাক হোসেন পান ২ লাখ ৩৬ হাজার ৫১২ ভোট। ব্রেকিংনিউজ

উত্তর সিটিতে আতিকুল আইনি বাধ্যবাধকতার কারণে মেয়র পদ ছেড়ে নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজয়ী হন। অপরদিকে দক্ষিণ সিটিতে মেয়রের দায়িত্বে থাকা সাঈদ খোকন এই নির্বাচনে অংশ না নেয়ায় তিনি এখন স্বপদে বহাল আছেন।

২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল উত্তর সিটিতে ভোট হওয়ার পর প্রথম সভা হয় ১৪ মে। সেই হিসাবে ২০২০ সালের ১৩ মে পর্যন্ত আর্গের নির্বাচিতরা স্বপদে বহাল থাকবেন। উত্তরে গেলবার মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন আনিসুল হক। ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর ৬৫ বছর বয়সে মারা যান তিনি। তার মৃত্যুতে অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে উত্তরের মেয়র হিসেবে ৯ মাস দায়িত্ব পালন করেন আতিকুল।

অন্যদিকে উত্তরের মতো দক্ষিণ সিটিতেও ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ভোটে মেয়র নির্বাচিত হন সাঈদ খোকন। তার করপোরেশনের দক্ষিণে প্রথম সভা হয় ১৭ মে। ফলে ২০২০ সালের ১৬ মে তার মেয়াদ শেষ হবে।

নতুন দুই মেয়র আতিকুল ও তাপসের দায়িত্ব গ্রহণ প্রক্রিয়া বিষয়ে সাবেক নির্বাচন কমিশনার মো. আবদুল মোবারক জানিয়েছেন, বর্তমান করপোরেশনের প্রথম সভা থেকে পরবর্তী ৫ বছর মেয়াদ শেষ হওয়া পর্যন্ত নবনির্বাচিতদের অপেক্ষা করতে হবে। তবে তার আগে গেজেট প্রকাশ ও শপথ গ্রহণের অনুষ্ঠান হতে পারে।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রাজনীতি