মরদেহ নিয়ে গেল স্বজনরা, বরণ করা হলো না নববধূকে!

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জ সদরের কান্দাপাড়া গ্রামের রাজন হোসেন (২৫) উল্লাপাড়ার সুমাইয়া খাতুনকে বিয়ে করে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছিলেন। নববধূ বরণের অপেক্ষায় ছিলেন স্বজন ও প্রতিবেশীরা। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে লাশ হয় ফিরতে হয় তাদের।

সোমবার (১৫ জুলাই) সন্ধ্যায় এই নবদম্পতিকে বহনকারী মাইক্রোবাসটি ট্রেনের ধাক্কায় দুমড়েমুচড়ে গেলে মৃত্যু হয় তাদের। এ সময় নিহত হন আরো আট জন। রাত ৩টার দিকে হাসপাতাল থেকে তাদের মরদেহ গ্রহণ করেন স্বজনরা।

রাতে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতাল থেকে লাশ হস্তান্তর করেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. তোফাজ্জল হোসেন। এসময় জিআরপি থানার ওসি হারুন মজুমদারসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে নিহতের স্বজনরা লাশের ময়নাতদন্ত করবেন না বলে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে মুচলেকা দেন। অল্প সময়ের মধ্যে সব প্রক্রিয়া শেষ করে লাশগুলো রাত ৩টার মধ্যেই হস্তান্তর সম্পন্ন হয়।

দুর্ঘটনার পর জেলা প্রশাসকের ত্রাণ তহবিল হতে স্ব স্ব উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে ২৫ হাজার টাকা করে প্রতিটি পরিবারকে অনুদান হিসেবে দেওয়ার ঘোষণা দেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. তোফাজ্জল হোসেন।

প্রসঙ্গত, সোমবার সন্ধায় উল্লাপাড়ার সলপ স্টেশনের অদূরে অরক্ষিত রেলওয়ে ক্রসিং পার হতে গিয়ে রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা আন্তঃনগর ট্রেনের ধাক্কায় বর ও কনেসহ বিয়ে যাত্রীর ১০ জন নিহত হন।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: রাজশাহী,সারাদেশ