মিন্নির জামিন শুনানি দুপুরের পর

স্টাফ রিপোর্টার: বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন আবেদনের শুনানি আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টায় অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল সোমবার এ মামলার আংশিক শুনানি শেষে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ মঙ্গলবার শুনানির জন্য সময় নির্ধারণ করেন।

মিন্নির পক্ষে জামিন আবেদনটি উপস্থাপন করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেড আই খান পান্না। তাঁকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী মাক্কিয়া ফাতেমা ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারোয়ার হোসেন।

গতকাল দুপুরে জামিন আবেদনের শুনানির শুরুতে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেড আই খান পান্না আদালতে বলেন, ‘মাই লর্ড, হাইকোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চে আমরা জামিন আবেদন করেছিলাম। আদালত রুল দিতে চেয়েছিলেন। আমরা নিইনি। আমরা আবেদন ফেরত নিয়েছি। এখন পুনরায় আপনার কাছে জামিনের আবেদন করেছি।’

জেড আই খান পান্না আরো বলেন, “এ মামলার এফআরআইয়ে আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির নাম নেই। তিনি ছিলেন মামলার প্রধান সাক্ষী। গত ১৬ জুলাই মিন্নিকে গ্রেপ্তারের পর তাঁকে রিমান্ডে নেওয়া হয়। পুলিশ তাঁকে রিমান্ডে নেওয়ার আগেই পুলিশ লাইনে নিয়ে যায়। পুরুষ পুলিশের অধীনে তাঁকে রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করে দোষ স্বীকার শেখানো বক্তব্য দিতে বাধ্য করা হয়। আদালতে হাজির করে পুলিশ দাবি করে, মিন্নি ১৬৪ ধারায় দোষ স্বীকার করে বক্তব্য দিয়েছেন। পরে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে মিন্নি এসব বক্তব্য প্রত্যাহারের আবেদন করেন। এমনকি মিন্নিকে নিম্ন আদালতে উপস্থাপনের পর কোনো আইনজীবী তাঁর পক্ষে দাঁড়াননি। মিন্নির পক্ষে মামলা না লড়তে আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে চাপ সৃষ্টি করা হয়। পরে মিন্নি নিজেই আদালতে বলেছেন, ‘আমি নির্দোষ।’”

জেড আই খান পান্না আরো বলেন, ‘রিফাত হত্যার আগে-পরে পুলিশ একটি ভিডিওকে ১১ টুকরা করে উপস্থাপন করে।’

এ পর্যায়ে আদালত আইনজীবীকে বলেন, ‘জামিনের পক্ষে আপনার যুক্তি কী?’

জবাবে আইনজীবী বলেন, ‘মিন্নি ১৯ বছরের একজন তরুণী। তিনি কলেজে পড়েন। মিন্নির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, এ মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ডের সঙ্গে রিফাত হত্যা মামলায় ষড়যন্ত্র করেছিলেন। কিন্তু এ বিষয়ে কোনো ডকুমেন্ট আমরা পাইনি। এ মামলার ১৬৪ ধারায় দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও পাইনি, যদিও নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে। একজন নারী এবং অসুস্থ বিবেচনায় জামিন আশা করছি। যেহেতু মিন্নি কলেজে পড়েন। জামিন হলে তিনি পালিয়ে যাবেন না। মিন্নিকে পুলিশ লাইনে নিয়ে পরে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।’

এ সময় আদালত জানতে চান, ‘পুলিশ লাইনে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি আপনারা কি নথিতে উপস্থাপন করেছেন?’

জবাবে আইনজীবী জেড আই খান পান্না বলেন, ‘স্টেটমেন্ট আছে।’

এ সময় আদালত বলেন, ‘পুলিশ লাইনে কখন নিয়েছে? আদালতে উপস্থাপনের পর নাকি পরে?’

জবাবে আইনজীবী জেড আই খান পান্না বলেন, ‘মিন্নিকে আদালতে উপস্থাপনের পূর্বে এবং পরেও পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়েছে।’

এ সময় আইনজীবী জেড আই খান পান্না এ-সংক্রান্ত জাতীয় দৈনিকের কয়েকটি সংবাদ আদালতে উপস্থাপন করেন।

এ সময় পেছন থেকে কয়েকজন জুনিয়র আইনজীবী মামলার নথি খুঁজে বের করে জেড আই খান পান্নাকে সহযোগিতা এবং কানে কানে কথা বলতে থাকলে আদালত বিরক্ত হয়ে বলেন, ‘এত জুনিয়র অ্যাসিস্ট করলে তো সিনিয়রের সমস্যা তৈরি হবে।’

এ সময় জেড আই খান পান্না বলেন, ‘একেবারে পাগল হয়ে যাওয়ার মতো অবস্থা!’

পরে আদালত বলেন, ‘মিন্নি ১৬৪ ধারায় দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেওয়ার আগেই পুলিশ সুপার সংবাদ সম্মেলন করেছেন—আপনার কাছে এ সংক্রান্ত কোনো সংবাদ আছে?’

জবাবে আইনজীবী জেড আই খান পান্না জানান, দোষ স্বীকারের আগেই পুলিশ সুপার সংবাদ সম্মেলন করেছেন। তবে তিনি তাৎক্ষণিক কোনো সংবাদ আদালতে উপস্থাপন করতে পারেননি।

পরে আদালত বলেন, ‘মিন্নিকে কবে পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়, কবে আদালতে উপস্থাপন করা হয়, কবে ১৬৪ ধারায় দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়া হয়, কবে পুলিশ সুপার সংবাদ সম্মেলনে মিন্নি জড়িত বলে বক্তব্য দেন, তা আগামীকাল দুপুর ২টার মধ্যে সম্পূরক আকারে জমা দিন।’ এরপর শুনানি আগামীকাল পর্যন্ত মুলতবি করা হয়।

এর আগে গত ৮ আগস্ট আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির জামিন আবেদন ফেরত দেন বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। ওইদিন হাইকোর্ট বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী থেকে আসামি হওয়া রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে জামিন দেননি। জামিন আবেদনের শুনানি শেষে হাইকোর্ট রুল দিতে চাইলে মিন্নির আইনজীবীরা তাতে সম্মত হননি। পরে আদালত জামিন আবেদন ফেরত দেন।

এর আগে গত ৫ আগস্ট মিন্নির জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। গত ৩০ জুলাই মিন্নির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

২২ জুলাই বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে প্রথমবার মিন্নির জামিনের আবেদন করেন আইনজীবী মো. মাহবুবুল বারী আসলাম। ওই দিনই শুনানি শেষে আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী মিন্নির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন।

পরদিন ২৩ জুলাই ‘মিস কেস’ দাখিল করে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামানের আদালতে ফের জামিনের আবেদন করেন মিন্নির আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম। পরে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের নথি তলব করে ৩০ জুলাই জামিন শুনানির দিন ধার্য করেন।

সেদিন তিন ঘণ্টার বেশি সময় ধরে উভয়পক্ষের শুনানি চলতে থাকে। এ সময় মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব করেন আদালত। তদন্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির আদালতে উপস্থিত হলে এ হত্যাকাণ্ডে মিন্নির সম্পৃক্ততার বিষয়ে তথ্য জানতে চাওয়া হয়। সবার উপস্থিতিতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ল্যাপটপে হত্যাকাণ্ডের আগের ও পরের ভিডিও ফুটেজ দেখান। এ ছাড়া মিন্নির ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দিসহ হত্যার আগে ও পরে প্রধান আসামি নয়ন বন্ডসহ অন্যান্য আসামির সঙ্গে মিন্নির কললিস্টের তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেন। শুনানি শেষে মিন্নির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

গত ২৬ জুন বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে নিয়ে বরগুনা সরকারি কলেজ থেকে ফেরার পথে নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজীসহ একদল যুবক রিফাত শরীফের ওপর হামলা চালায়। তারা ধারালো দা দিয়ে রিফাত শরীফকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। এ সময় মিন্নি হামলাকারীদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন; কিন্তু তাদের থামানো যায়নি। খুনিরা রিফাত শরীফকে উপর্যুপরি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে চলে যায়। পরে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রিফাতের মৃত্যু হয়।

এ হত্যার ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ পরের দিন সকালে ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা সদর থানায় মামলা করেন। মিন্নি ছিলেন সেই মামলার এক নম্বর সাক্ষী। পরে ১৬ জুলাই রাতে এ মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ। পরদিন বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী মিন্নির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর পরদিন ১৮ জুলাই বরগুনার পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন তাঁর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে জানান, এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হওয়া সব আসামি এবং মিন্নির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির কারণে সুস্পষ্ট তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে মিন্নিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মিন্নি এ হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে জানতেন। শুরু থেকে এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যাঁরা জড়িত ছিলেন, তাঁদের সঙ্গেও তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন। এ হত্যাকাণ্ডটি ঘটাতে যা যা প্রয়োজন, সব ধরনের মিটিং করেছেন হত্যাকারীদের সঙ্গে। মিন্নি নিজেও এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলে তাঁকে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। আগে ও পরে খুনিদের সঙ্গে মিন্নির কথোপকথনও হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও দু-একটি মিডিয়ায় এ নিয়ে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রকাশ করছে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডটি কোনো মাদকের কারণে ঘটেনি। ঘটেছে ব্যক্তিগত জিঘাংসার কারণে। মাদক বা অন্য কোনো ইস্যুর কথা উঠলে মামলাটির ফোকাস ভিন্ন খাতে প্রবাহিত হতে পারে। এ মামলায় বাদী যাদের হত্যাকারী দাবি করেছেন, আমরা তাদের প্রায় সবাইকেই ধরেছি এবং কাউকেই ছাড় দিচ্ছি না। এ পর্যন্ত আমরা এজাহারনামীয় আটজনকে গ্রেপ্তার করেছি। সর্বমোট ১৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অতএব, এ নিয়ে বিভ্রান্তির কোনো সুযোগ নেই।’

পুলিশ সুপারের এই বক্তব্যের পরদিন ১৯ জুলাই শুক্রবার দুপুরে মিন্নিকে বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিমের আদালতে হাজির করে পুলিশ। পরে আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর কাছে মিন্নি রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন বলে পুলিশ জানায়। জবানবন্দি শেষে আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: আইন-আদালত