লাগাম ছাড়া অশ্লীলতায় ধ্বংসের মুখে টিভি নাটক!

বিনোদন প্রতিবেদক: টেলিভিশনেই দর্শকরা একটা সময় নাটক উপভোগ করতেন। সময়ের পরিক্রমায় টিভি থেকে নাটক চলে আসে ইউটিউবে। ইউটিউব মুক্তবাজার। যে কারো স্বাধীনতা আছে এটির জন্য নির্মাণ করার। ইউটিউবে নেই কোনো সেন্সরবোর্ড। ফলে নতুন নির্মাতারা এই সুযোগটার নেতিবাচক ব্যবহার করছেন।-ব্রেকিংনিউজ/

ভিউ বাড়ানোর প্রতিযোগিতায় গল্পের সাথে জুড়ে দিচ্ছেন অশ্লীলতা। এমনকি টিভি নাটকেও অশ্লীল সংলাপ, পোশাক ও বিভিন্ন ধরনের সুড়সুড়ি দৃশ্য দিয়ে দর্শককে আকৃষ্ট করার প্রতিযোগিতা চলছে এই সময়ের অনেক নাট্য নির্মাতার মধ্যে।

অনেকেই বলেন নাটকে অশ্লীলতা শুরু ‘আবাসিক হোটেল’ শিরোনামের একটি নাটকের মধ্য দিয়ে। এটি ২০১৭ সালে ইউটিউবে আসে। তারপর থেকে নাটকে অশ্লীলতা বাড়তে থাকে। সাম্প্রতিক সময়ে ‘ব্যাচেলর ট্রিপ’, ‘শোবার ঘর’, ‘টম অ্যান্ড জেরি-২’, ‘দুদুমিয়া’সহ বেশ কিছু নাটকে অশ্লীল সংলাপ দেখা যায়।

নাটক সংশ্লিষ্ট অনেকের অভিমত, প্রতিযোগিতার নামে কোনো কোনো নির্মাতা কিংবা অভিনয়শিল্পী অকারণে এত বেশি খোলামেলা হচ্ছে তা চোখে লাগার মতো। সময়ের কিছু খারাপ দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে তারা। এগুলো থেকে বের হয়ে আসতে না পারলে দর্শক ভিনদেশের সংস্কৃতির দিকেই ঝুঁকে পড়বে।

এই প্রসঙ্গে নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম বলেন, টেলিভিশন নাটকে আপত্তিকর কিছু থাকবে এটি কারো কাম্য নয়। টেলিভিশনকে বলা হয় ড্রয়িং রুম মিডিয়া। এখানে পরিবারের সকলে একসঙ্গে বসে টিভি দেখেন। সময়ের সঙ্গে আধুনিকতা আমাদের মধ্যে এসেছে। তাই বলে অশ্লীলতাকে নিজেদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া যাবে না।

নির্মাতা শিহাব শাহিন বলেন, আমাদের তরুণ নির্মাতাদের মধ্যে এখন ভিউয়ের প্রতিযোগিতা চলছে। ভিউয়ের দিক থেকে তাকে এগিয়ে থাকতে হবে এই মানসিকতা দূর করতে হবে নির্মাতাদের। তাহলে নাটকে স্থিতিশীলতা আসবে। এখন যেভাবে নাটক নির্মাণ হচ্ছে সেভাবে চলতে থাকলে চলচ্চিত্রের মতো একটা সময় আমাদের নাটকও শেষ হয়ে যাবে।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: বিনোদন