সম্রাট গ্রেফতার হবে কি-না ‘ধৈর্য ধরলে’ জানা যাবে!

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম: ক্যাসিনোর ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে যুবলীগ নেতা সম্রাট গ্রেফতার হবে কি-না সেটি ধৈর্য ধরলে জানা যাবে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ।

শুক্রবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে বনানী দুর্গাপূজার মণ্ডপের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষেণে এসে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

র‌্যাব ডিজি বলেন, ‘শুদ্ধি অভিযানে কারা গ্রেফতার হবে, কারা গ্রেফতার হবে-না সেটা আমাদের দেখার বিষয় না। যাদের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যাবে, তাদের গ্রেফতার করা হবে।’

সম্রাট এখন কোথায় এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি সুনির্দিষ্টভাবে কারও নাম বলব না। শুধু বলতে চাই আপনারা ধৈর্য ধরলেই দেখতে পাবেন। এর বাইরে এ বিষয়ে মন্তব্য করতে চাই না।’

সাবেক ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘ক্যাসিনোর জন্য পুলিশ একা দায়ী নয়। সে সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হিসেবে র‍্যাবসহ অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার ওপরও দায় পরে।’ এ বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাব প্রধান বলেন, ‘এটা আসলে আমি জানি না, উনি বলেছেন কিনা। উনি একজন অভিজ্ঞ পুলিশ কর্মকর্তা। ওনার এই ধরনের মন্তব্য করার কথা না আমি যতটুক জানি। আমি ধারণা করব যে উনি এ ধরনের মন্তব্য করেন নাই, তাই এ বিষয়ে আমার মন্তব্য করা ঠিক হবে না।’

আমরা ৭টি ম্যান্ডেট নিয়ে কাজ করছি উল্লেখ করে বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘আমাদের সর্বশেষ ম্যান্ডেট হচ্ছে সরকার যখন যা নির্দেশ দিবে তাই করব। সুতরাং সরকার নির্দেশিত না হলে, সাধারণত আমরা ম্যান্ডেটের বাইরে গিয়ে কাজ করি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা নিশ্চয়ই জানেন, এবার প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনি ইশতেহারে কিন্তু দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করার কথা বলেছেন। চলমান দুর্নীতিবিরোধী বা শুদ্ধি অভিযান অনেক বড় একটি বিষয়। এই অভিযানের সঙ্গে শুধুমাত্র র‌্যাব ফোর্সেস জড়িত না। আর এই অভিযানে র‌্যাব লিড এজেন্সি নয়। আমরা সহযোগী প্রতিষ্ঠান, আমরা সরকারের নির্দেশে কাজ করছি।’

বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘সারা দেশে ৩১ হাজারের বেশি পূজামণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে। শান্তিপূর্ণভাবে পূজা উদযাপনের জন্য র‍্যাবের পক্ষ থেকে সকল প্রকার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। রাজধানীর প্রতিটি পূজামণ্ডপে যেকোনও অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আমাদের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, ডগ স্কোয়াড দ্বারা মণ্ডপ সুইপিং করা হবে। এছাড়া পূজামণ্ডপের আশপাশের রাস্তায় চেকপোস্ট বসানো ও ব্লক রেইড করা হবে।’

ডিজি বলেন, ‘এছাড়াও সারাদেশে র‍্যাবের কমান্ডিং অফিসার ও ক্যাম্প অফিসারদের সঙ্গে পূজা কমিটির বৈঠক হয়েছে। পূজামণ্ডপে আসা যাওয়া করতে নারীদের কোনো হয়রানির শিকার না হতে হয় সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইভটিজিং স্পষ্টত যৌন হয়রানি। নারীরা যেন কোনো প্রকার হয়রানির শিকার না হয় সে বিষয় আমরা লক্ষ্য রাখব। আপনারা জানেন আমাদের কর্মীবাহিনী সীমিত, তারপরেও আমরা চেষ্টা করব।’

বর্তমানে সারাদেশে ৩১ হাজার ৮০০ মণ্ডপে দুর্গা পূজার উদযাপন হচ্ছে। ২০০৯ সালে ১১ হাজার মণ্ডপে দুর্গা পূজা উদযাপিত হয়েছিল বলেও জানান তিনি।

প্রিন্ট করুন

বিভাগ: জাতীয়