আমদানি অসুবিধা সত্ত্বেও বাংলাদেশে ফুল চাষ লাভজনক

১৭২

বাংলাদেশে ১৯৮০ সালে বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষ শুরু হওয়ার পর থেকে, অনেক বাঙালি ফুল চাষ ও বিক্রিতে তাদের পরিবারকে সমর্থন করছে। বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির চেয়ারম্যান জনাব আব্দুর রহিম বলেন, দেশের ২৫টি জেলায় ২০ হাজারের বেশি কৃষক ফুল চাষকে তাদের আয়ের উৎস হিসেবে গ্রহণ করেছে। ফ্লাওয়ার সোসাইটি দ্বারা পরিচালিত একটি সমীক্ষা দেখায় যে ফুল চাষ ১৭৪.৫ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি আয় করেছে। সূত্র: A24 News Agency

জনাব আব্দুর রহিম বলেন, “বাংলাদেশে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে ফুল চাষ শুরু হয় ১৯৮০ সালে। এখন ২৫টি জেলায় প্রায় ২০ হাজার কৃষক ৬,০০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরনের ফুলের চাষ করে। আমাদের পরিচালিত একটি বাজার বিশ্লেষণ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯-২০ অর্থবছরে, বাংলাদেশের ফুল চাষ প্রতি বছরে প্রায় ১-১.৫ বিলিয়ন টাকা আয় করেছে যা ১৭৪.৫ মিলিয়ন ডলার। শুধুমাত্র এই এলাকা থেকেই, আমরা সারা দেশে প্রায় ৪০-৫০ মিলিয়ন টাকা মূল্যের ফুল বিক্রি করি প্রতি বছর।”

ফুল চাষী একজন দৈনিক শ্রমিক বলেন যে বাংলাদেশে সব ধরনের ফুল চাষের জন্য উপযুক্ত জলবায়ু ও মাটি রয়েছে; তবে সমস্যা হল বিদেশ থেকে বীজ আমদানি করা কৃষকদের উপর আর্থিক বোঝা হয়ে দাঁড়ায়। বাংলাদেশে বীজ উৎপাদন করা গেলে খরচ অনেক কম হতো উল্লেখ করে তিনি বলেন, লিলি ও টিউলিপের মতো ফুল চাষ করা অত্যন্ত লাভজনক। ২০২২ সালের জানুয়ারিতে টিউলিপ চাষ করে সফল হন ইসমাইল হোসেন।

তাঁর মতে, “আমি এই বছরের ১লা জানুয়ারি থেকে টিউলিপ বাল্ব কাটা শুরু করেছি। জমি আগেই সার দেওয়া হয়েছিল এবং অন্যান্য জৈব উপাদান দিয়ে ইনজেকশন দেওয়া হয়েছিল। ৬ই জানুয়ারী, আমি টিউলিপ বাল্ব লাগিয়েছি। বীজ ফেলার ১৮ দিনের মধ্যে, আমি কুঁড়ি দেখতে শুরু করি এবং ২২ দিনের মধ্যে কুঁড়ি ফুটে ওঠে। সাতটি জাতের মধ্যে ছয়টি সফলভাবে ফুটেছে। ২৪ দিনের মধ্যে সমস্ত ফুল প্যাক করে বাজারজাত করা হয়েছিল।“

বিভিন্ন ফুলের বাগানে দিনমজুর হিসেবে কাজ করেন আবুল কালাম। তার মতো অনেক দিনমজুরের জীবিকা এখন এটি। আবুল কালাম জানান, “আমি এই এলাকায় প্রায় ৮-১০ বছর ধরে কাজ করছি। আমি সকাল ৭টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা এবং বিকাল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কাজ করি। আমাদের দৈনিক মজুরি ৪৫০ টাকা। আমাদের খুব কম লোকই আছে যারা শুধু ফুল তোলার কাজ করে।“

এই ব্যবসায়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে আরেক ফুল চাষি আব্দুল আজিজ বলেন, “২০১১ সালে, আমি জারবেরা চাষ শুরু করি। একটি এনজিও আমাকে ৬৯টি লিলি বাল্ব দিয়েছে এবং আমি সেই সময়ে ৫,২০০ টাকা মূল্যের লিলি ফুল বিক্রি করেছি। এটা কৃষকদের জন্য খুবই উৎসাহজনক ছিল এবং সবাই লিলি চাষ শুরু করে। ২০২২ সালে, আমার ভাগ্নে ইসমাইল টিউলিপ চাষ শুরু করে। যার ফলাফল দেখে আমি আনন্দিত এবং উত্তেজিত হয়ে ছিলাম কিন্তু বাংলাদেশে মূল সমস্যা হচ্ছে বীজ সংগ্রহ।

পৃথিবীতে এমন কোনো ফুল নেই যা বাংলাদেশে লাগানো সম্ভব না কিন্তু বিদেশ থেকে বীজ আমদানি করতে অনেক খরচ হয়। আমার বাগানে চাইনিজ গোলাপটি দেখুন, আমাকে এটির প্রতি পিস গাছের জন্য ৭০ টাকা এবং আমদানি ফি দিতে হয়েছিল। লিলি ফুলের ক্ষেত্রেও একই, যার প্রতি পিস ২২০ টাকায় কিনতে হয়েছিল আর টিউলিপ ২২০ টাকায়।আমরা যদি এগুলো বাংলাদেশে উৎপাদন করতে পারতাম, তাহলে এগুলো অনেক সস্তা হতো। লিলি এবং টিউলিপ দুইটির রোপণই খুবই সুন্দর এবং লাভজনক।

“ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন: Youtube Link: https://youtu.be/zuz8kkaTpVI

Comments are closed.