আসন বণ্টন: ভ‌য়ে জাপা নির্ভার যুক্তফ্রন্ট

0 210

নিউজ ডেস্ক: একাদশ জাতীয় নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে আসলেও মহা‌জো‌টের সঙ্গে আসন বণ্টন ইস্যুতে এখনও কৌশলগত অবস্থানে রয়েছে জাতীয় পার্টি। ত‌বে এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীনা যুক্তফ্রন্ট অনেটাই চূড়ান্ত করেছে ফেলেছে প্রার্থী তালিকা। আছে অনেকটা নির্ভার অবস্থানেও। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহজোটের অন্যতম শরিক জাপা একাদশ সংসদ নির্বাচনে কতটি আসন পাবে তা নিয়ে এখন চলছে চুলছেড়া বিশ্লেষণ। যদিও জাপার পক্ষ থেকে অনেক আগেই ১০০টি আসন দাবি করা হয়েছে।

সম্প্রতি এক সভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ব‌লে‌ছেন, ‘মহাজোট শরিকদের ৬৫ থেকে ৭০টি আসন দেয়া হতে পারে। এক্ষেত্রে জোটের শরিক দলগুলোর যোগ্য প্রার্থী থাকলে আওয়ামী লীগ নিজ দলের প্রার্থীদের মনোনয়ন দেবে না।’

এদিকে ভোটের সময় ঘনিয়ে আসায় মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টি ও সদ্য ১৪ দলে যোগ দেয়া যুক্তফ্রন্ট এখন যোগ্য প্রার্থীর তালিকা তৈরিতে ব্যস্ত। কারণ ১৪ দলের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় পার্টি ও যুক্তফ্রন্টকে যোগ্য প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ার অনুরোধ জানান।

মহাজোটের সবচেয়ে বড় শরিক দল জাতীয় পার্টি (জাপা) নিজেদের অবস্থান এখনও স্পষ্ট করেনি। আওয়ামী লীগ শরিকদের ৬৫-৭০ আসন দেয়ার এমন সিদ্ধান্ত জানানোর পর এ প্রসঙ্গে জাপা মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার ব্রে‌কিং‌নিউজ‌কে বলেন, ‘মহাজোটের সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষার্থে এখন কিছু বলতে পারছি না। আওয়ামী লীগের সঙ্গে আমরা বৈঠকে বসে কথা বলবো। আশা করি আলোচনার মাধ্যমেই আসন বণ্টন চূড়ান্ত হবে।’

তবে মহাজোটের সঙ্গে সম্পর্ক অটুট রাখার কথাও জানান তিনি। বলেন, ‘অনেক কৌশলে আমাকে কথা বলতে হচ্ছে। আমরা সম্পর্ক রক্ষা করে চলতে চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘আসন ভাগাভাগি নিয়ে চূড়ান্তভাবে আলোচনা হয়নি। তাদের সাথে (আওয়ামী লীগ) যখন বসব, তখন এ বিষয়ে আলোচনা করব। আমরা আমাদের দিকটা তুলে ধরব। যারা যোগ্য ব্যক্তি রয়েছেন, তাদের কথা অবশ্যই তুলে ধরব। তারা যেন মনোনয়ন পায় এ বিষয়ে প্রস্তাব রাখব।’

এদিকে নির্বাচনী ক্যাম্পেইনের শুরুতে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেয়ার প্রচার চালায় জাতীয় পার্টি (জাপা)। জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সাম্প্রতিক বিভিন্ন বক্তব্যে এমনটিই জানিয়েছেন। তবে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে আসার পর জাপা মহাজোটের অন্তর্ভুক্ত হয়ে নির্বাচন করার বিষয়টি একরকম স্থির করে ফেলে বলে দলীয় সূত্র জানায়।

ক’দিন আগেই এক সভায় এরশাদ জানান, মহাজোটে যেতে তাঁর দল ১০০ আসন চাইবে। যেখানে তারা ৭০টির মতো আসন পেতে পারেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

তবে মহাজোটের শরিকদের জন্য ৬৫-৭০ টি আসন বরাদ্দ থাকলে সেখানে জাতীয় পার্টির ভাগে কতটি পড়বে তা নিয়েই এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘মহাজোটে কত আসন চাইব, তা নিয়ে আমাদের আলোচনা চলছে। প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করার পর প্রকাশ করা হবে। তবে নির্বাচনে জয় নিশ্চিত করতে পারবেন এমন প্রার্থীদের তালিকাই আমরা তৈরি করছি।’

২৫ জনের তালিকা প্রস্তুত যুক্তফ্রন্টের: যুক্তফ্রন্টের সবচেয়ে বড় শরিক দল বি.চৌধুরীর বিকল্পধারা। চলতি সপ্তাহে পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘মহাজোটে অংশগ্রহণ করা নিয়ে আর কোনও লুকোচুরি নেই আমাদের। এখন আমরা আসন বণ্টন নিয়ে আলোচনায় বসবো।’

তবে দলটির যুগ্ম মহাসচিব ও মুখপাত্র মাহি বি.চৌধুরী গত সোমবার নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের বলেন, ‘মহাজোটের সঙ্গে ঐক্য নিয়ে আমাদের আলোচনা চলছে। অতি শিগগিরই মহাজোটের সঙ্গে বৈঠকে বসবো। তখন সম্ভাব্য জয় ছিনিয়ে আনতে পারবেনএমন প্রার্থী তালিকা নিয়ে আমরা আওয়ামী লীগের সঙ্গে আলোচনা করবো।’

এসময় তিনি ধারণা দিয়ে বলেন, ‘জয়ী হবেন এমন ১৫ থেকে ২৫ জনের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। যা মহাজোটের সঙ্গে বৈঠকে বসলে জানানো হবে।’

বিকল্পধারার সভাপতিমণ্ডলীর দুই সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে ব্রে‌কিং‌নিউজ‌কে জানান, বিকল্পধারা ইতোমধ্যে ২৫ জন সম্ভাব্য জয়ী প্রার্থীর তালিকা তৈরি করেছে। তাদের একজন জানান, ২৫ জন প্রার্থী থেকে কমপক্ষে ১৫ জনের মনোনয়ন পেতে দর কষাকষি করবে যুক্তফ্রন্ট। কিন্তু সেই দর কষাকষিতে আওয়ামী লীগ কয়টি আসন ছাড়বে সেটিই এখন দেখার।

অন্যদিকে প্রতীক নিয়েও থাকছে জটিলতা। বিকল্পধারা কি তাদের দলীয় প্রতীক ‘কুলা’ নিয়েই ভোটে আসবে নাকি জোটের স্বার্থে নৌকা প্রতীক নেবে এ নিয়েও চলছে বিচার-বিশ্লেষণ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিকল্পধারার এক শীর্ষ নেতা ব্রেকিংনিউজ‌কে বলেছেন, ‘প্রতীক কুলার পরিবর্তে নৌকাও হতে পারে।’
 

বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম/

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x