এই বন্যায় করণীয়

0 186

লাইফস্টাইল ডেস্ক: বর্তমানে বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড় দুঃসংবাদ হচ্ছে, বাংলাদেশের বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি। বন্যায় যোগাযোগ ব্যবস্থা, ঘর বাড়ি, শস্যক্ষেত্র, গবাদিপশু ইত্যাদির ক্ষতির সাথে সাথে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বন্যার সময় বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটে থাকে। কখনো কখনো রোগগুলো মহামারি আকারও ধারণ করতে পারে। প্রিয় পাঠক, চলুন জেনে নেওয়া যাক বন্যায় পানিবাহিত রোগ ছড়িয়ে পড়ার কারণ ও প্রতিকারের উপায়গুলো।-ব্রেকিংনিউজ/

বন্যার সময়ে যেসব রোগ হতে পারে:

১. পেটের পীড়া: পেটের পীড়া নানা রকম হয়ে থাকে। যেমন:
ক. ডায়রিয়া, কলেরা।
খ. ডিসেন্ট্রি (আমাশয় ও রক্ত আমাশয়)
গ. টাইফয়েড
ঘ. ভাইরাল হেপাটাইটিস

২. বুকের প্রদাহ: কফ, কাশি, শ্বাসকষ্ট নিয়ে নিউমোনিয়া, ব্রংকাইটিস প্রভৃতি হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে শিশুরাই বেশি আক্রান্ত হয়।

৩. জ্বর: নানা রকম ভাইরাল বা ব্যাকটেরিয়াল জ্বর হয়ে থাকে।

৪. চর্মরোগ: যেমন- খোস পাচড়া, ছত্রাকঘটিত সংক্রমণ প্রভৃতি চর্মরোগ হয়ে থাকে।

৫. চোখের প্রদাহ: যেমন- কনজাংটিভাইটিস, আইরাইটিস ইত্যাদি।

৬. সর্প দংশন : নানা রকম সর্পদংশনের ঘটনাও ঘটে থাকে।

৭. বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়া: বন্যার সময় শিশুরা অনেকসময় সাতার না জানার দরুন পানিতে ডুবে মারা যায়। এছাড়াও রয়েছে মশার প্রাদুর্ভাব।

চলুন জেনে নেই বন্যার সময় সবধরনের প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবিলা করতে করণীয় সম্পর্কে:

বন্যা মোকাবিলায় সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে বিশুদ্ধ পানি ও খাদ্য ব্যাবহার করা। পানিকে সেকে কমপক্ষে আধা ঘণ্টা ফোটাতে হবে। তাছাড়া, ফিটকিরি, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট দিয়েও পানি বিশুদ্ধ করা যায়। প্লেট, গ্লাস, হাত ভালো করে বিশুদ্ধ পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। বাসি, নষ্ট খাবার পরিহার করতে হবে।

বন্যার পানিতে বেশি হাটা, চলা, গোসল করা পরিহার করতে হবে। এতে করে জ্বর, বুকের প্রদাহ, চর্মরোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

শিশুদেরকে বিশেষ যত্ন নিতে হবে। অসাবধানতার কারণে পানিতে যাতে পড়ে না যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। শিশুদেরকে শুষ্ক পরিবেশে এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন অবস্থায় রাখতে হবে।

ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হলে খাবার স্যালাইন খেতে হবে। বমি বেশি হলে শিরায় স্যালাইন দিতে হবে। অতিমাত্রায় পাতলা পায়খানা, বমি হলে, রক্ত গেলে, জ্বর থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

বৃষ্টি, ঝড়, বন্যার কারণে ঠান্ডা লেগে অনেকসময় কফ-কাশি, শ্বাসকষ্ট, জ্বর প্রভৃতি হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে কিছু উপসর্গ নিরাময়ের ঔষধ সেবনের পরও উপকার না পেলে ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হতে হবে।

বন্যার সময় চর্মরোগ দেখা দিলে যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব চিকিৎসকের সহযোগিতা নিতে হবে।

সাপে কামড়ালে আক্রান্ত স্থানের উপরে মোটা কাপড় দিয়ে বেধে ক্ষতস্থান ভালো করে পরিষ্কার করে নিতে হবে। যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।

সর্বোপরি বন্যা বাংলাদেশের মতো দেশে অসহনীয় এক অভিশাপ। একেকটা বন্যা আমাদেরকে কয়েক বছরের জন্য পঙ্গু করে দিয়ে যায়। বন্যা প্রতিরোধে সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি জনসচেতনতাই পারে বন্যাকবলিত মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে দিতে।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x