একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা : যত্রতত্র বালু ব্যবসা চলবে না

55

দেশে সুষ্ঠু বালু ব্যবসার জন্য একে শৃঙ্খলার মধ্যে আনার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেইসঙ্গে যত্রতত্র বালু ব্যবসা যেন গড়ে না ওঠে সেদিকে নজর রাখতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও দপ্তরগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

আজ বুধবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ নির্দেশনা দেন। একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ সভায় অংশ নেন।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

মন্ত্রী বলেন, আজকের একনেক সভায় ১০টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে দুই হাজার ৬০৯ কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয় হবে। প্রকল্পগুলো নিয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউলুপ, আন্ডারপাস ও ওভারপাসের কথা চিন্তা করে এখন থেকে সড়ক ও মহাসড়ক নির্মাণ করতে হবে। এতে সড়ক ও মহাসড়কে শৃঙ্খলা আসবে, মানুষও উপকৃত হবে।

এম এ মান্নান বলেন, আজকের সভায় পদ্মা বহুমুখী সেতুর ভাটিতে মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলাধীন বিভিন্ন স্থানে ‘পদ্মা নদীর বাম তীর সংরক্ষণ’ প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। এ প্রকল্প নিয়ে আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী বালুমহাল নিয়ে বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, দেশের যত্রতত্র বালু ব্যবসা গড়ে উঠেছে। এ ধরনের ব্যবসা নিয়ে অনেক ঘটনা ঘটছে। এগুলো বন্ধ করতে হবে। বালু ব্যবসাকে একটি কাঠামোর মধ্যে আনতে হবে।

সভায় পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান, কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীরা অংশ নেন।

x