এমন হারের কোনো অজুহাত দিচ্ছেন না মুমিনুল

৩২৩
বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। ছবি : সংগৃহীত

ওয়ানডে সিরিজের শুরুটা হয়েছে স্বপ্নের মতো। তিন ম্যাচের সিরিজ বাংলাদেশ জিতেছে ২-১ ব্যবধানে। কিন্তু রঙিন পোশাকের লড়াই শেষে টেস্ট মাঠে গড়াতেই মুদ্রার উল্টো পিঠ দেখল বাংলাদেশ। দুই টেস্টেই হারল বিশাল ব্যবধানে।

সেই সঙ্গে বাজে পারফরম্যান্স তা আছেই। সাদা পোশাকে এমন হারের জন্য অবশ্য কোনো অজুহাত দিচ্ছেন না অধিনায়ক মুমিনুল হক। টেস্ট সিরিজের হতাশা ভুলে সামনে ফোকাস দেওয়ার দিকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৩৩২ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টের চতুর্থ দিনে ৮০ রানে অলআউট বাংলাদেশ। বড় জয়ে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার।

এমন হারের পর বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল বলেন, ‘আমরা ব্যাটিং-বোলিং কোনো দিকেই দল হিসেবে পারফর্ম করতে পারিনি। যেটা দক্ষিণ আফ্রিকা করেছে। তাদেরকে অভিনন্দন। এটা(পরাজয়) খুব হতাশার কিন্তু আমাদের সামানে এগিয়ে যেতে হবে। ব্যাটিং ব্যর্থতা নিয়ে বললে বলব,  এটার মূল কারণ আমাদের একটা জুটিও দাঁড়ায়নি। এসবের কোনো অজুহাত নেই। আমাদেরকে এখন সামনের দিকে ফোকাস দিতে হবে। এখানে কি করলাম সেটার দিকে নয়। এখানে ওয়ানডে সিরিজ জিতেছি। এটা পজিটিভ দিক।’

দক্ষিণ আফ্রিকার কন্ডিশনে স্পিনে ব্যর্থ হওয়ার আরেকটি কারণও জানালেন মুমিনুল। অধিনায়কের মতে, ‘আমাদের দেশে যে উইকেট সেই তুলনায় এখানকার উইকেট কিন্তু ভিন্ন। বিশেষ করে উপমহাদেশের উইকেট। উপমহাদেশে বা আমাদের দেশে সাইড স্পিনটা বেশি কার্যকরী। কিন্তু এসব জায়গায় সাইড স্পিন কাজে আসে না। ওভার স্পিন বেশি কার্যকরী। আমাদের বোলাররা সাইড স্পিন বল করে, ব্যাটসম্যানরা সাইড স্পিন খেলে অভ্যস্ত। এখানে এসে দুই দিনেই সবাই ওভার স্পিনে ভালো করবে। সেটা করতে গেলে অনেক কৌশলগত পরিবর্তন করতে হয়, যেটা করতে গেলে আগের কৌশলে সমস্যা হতে পারে। এটাও একটা কারণ হতে পারে।’

সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে বাংলাদেশকে ৪১৩ রানের লক্ষ্য দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। যে রান তাড়া করে জিততে হলে ইতিহাস গড়তে হতো বাংলাদেশকে। কিন্তু, বাংলাদেশ ইতিহাস গড়া তো দূরের কথা, দলীয় রান ১০০-তেও নিতে পারল না মুমিনুল হকের দল। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে থেমে গেল মাত্র ৮০ রানে।

Comments are closed.