কম্বোডিয়ায় বিদেশী কোম্পানির আধিপত্যে শ্রম অভিবাসনে বাধ্য হচ্ছেন কৃষকরা

84

কম্বোডিয়ার কৃষকরা তাদের নিজ শহরে বিদেশী কোম্পানির আধিপত্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।কারণ কোম্পানির মালিকরা দিন দিন আরও বেশি চাষের জমি নিয়ন্ত্রণ করে চলেছে, যা স্থানীয়দের জীবিকা নির্বাহ করা কঠিন করে তুলছে। এ ধরনের আধিপত্তের ফলে শ্রম অভিবাসন ঘটছে। দেশটির একটি প্রদেশ প্রেহ ভিহিয়ার, যেখানে স্থানীয় কৌই সংখ্যালঘুরা বসবাস করে। এমন গ্রামগুলিতে এ ধরনের শ্রম আভিবাসন স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। সূত্র: A24 News Agency

মিসেস সোয়েং স্যাম নামে এক কোই আদিবাসী প্রতিনিধি জানান তাদের অবস্থা, “এই ভূমি বিরোধের কারণে, কোইয়ের লোকেরা থাইল্যান্ডের মতো বিদেশে কাজ করতে চলে গেছে এবং আমার নিজের নাতি-নাতনিদের মতো অন্যদেরও স্কুল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিতে প্রভাবিত করেছে।আমি দুঃখিত কিন্তু আমি জানি না কি করব কারণ কোম্পানিটি আমার সম্প্রদায়ের চেয়ে বেশি শক্তিশালী। তাই, আমরা শুধুমাত্র আমাদের জমি পুনরুদ্ধার করার জন্য ওকালতি করবো“ কম্বোডিয়ান কর্তৃপক্ষ সেখানে বিদেশী কোম্পানীগুলিকে জমি ভাড়া দেওয়ার অধিকার দিয়েছে।

ফলে গ্রামবাসীদের অনেকে বিদেশে কাজের সুযোগ খুঁজতে বাধ্য হয়েছেন। এখন বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী এবং মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলি তাদের জমি নিয়ন্ত্রণে কোম্পানিগুলির অধিকারের আইনি ভিত্তি নিয়ে বিতর্ক শুরু করেছে এবং সংস্কারের দাবি জানিয়েছে। কোই আদিবাসী প্রতিনিধি মিঃ টিব টোয়েম বলেন, “আমার গ্রামে একটি আখ কোম্পানির সাথে ২০১২ সাল থেকে আমার জমির বিরোধ চলছে। আমার সম্প্রদায়ের কৃষিজমি, আবাদ, বন, প্রাচীন মন্দিরের ভিত্তি ধ্বংস হয়ে গেছে।

তিন চীনা অভিবাসীদের ভাড়া দেওয়ার জন্য তারা সরকারের কাছ থেকে জমি ছাড় নিয়েছিল, যা প্রতি হেক্টরে ১০০ ডলার। চাইনিজরাও আমাদের কাছে খাজনা দিতে চেয়েছিল, কিন্তু আমরা প্রত্যাখ্যান করি কারণ জমিটি আমাদের। আমার জমিতে চাষাবাদ ও চাষ করার অধিকার আমার আছে।“

এদিকে, এসব কোম্পানি সম্পর্কে বলেছেন অ্যাডহক অধিকার গ্রুপের প্রাদেশিক সমন্বয়কারী মিঃ লর চ্যান। তিনি বলেন, কোম্পানিটি একটি চীনা কোম্পানি, হেংফু গ্রুপ। কোম্পানিটি হেং নন কম্বোডিয়া ইন্টারন্যাশনাল কোং লিমিটেড, হেং ইউ কম্বোডিয়া ইন্টারন্যাশনাল কোং লিমিটেড, হেং রুই কম্বোডিয়া ইন্টারন্যাশনাল কোং লিমিটেড, ল্যান ফেং কম্বোডিয়া ইন্টারন্যাশনাল কোং লিমিটেড এবং রুই ফেং কম্বোডিয়া ইন্টারন্যাশনাল কোং লিমিটেড নামে পাঁচটি ছোট কোম্পানি গঠন করেছে। রাজকীয় সরকার এবং কোম্পানির মধ্যে চুক্তি হল রাবার এবং বাবলা গাছ এবং আখ চাষ করা। আখ লাগাতে কোম্পানির ভুল নেই।

কোম্পানীর ভুল হল অভিবাসীদের কাছে ভাড়া দেওয়ার জন্য কৌয়ের খামার জমি নেওয়া এবং অস্বাভাবিক বিষয় হল কোম্পানিটি ধান চাষের জন্য জমি নিয়েছিল যা কোই আদিবাসীদের ব্যবসা লুট করছে। কোম্পানী যা করে তা রাজকীয় সরকারের সাথে সম্মত চুক্তির থেকে ভিন্ন, কোম্পানির কেবলমাত্র স্বাক্ষরিত চুক্তিতে লেখা মাস্টার প্ল্যান করার অধিকার রয়েছে।

নীতিগতভাবে, একটি ভূমি ছাড় আইন একটি বিনিয়োগ কোম্পানিকে ১০,০০০ হেক্টরের বেশি পাওয়ার অধিকার দেয় না। কিন্তু সম্প্রতি, আমি ইসির পাশাপাশি অন্যান্য সংস্থাকে সহযোগিতা করেছি, আমরা দেখতে পেয়েছি যে ওই পাঁচটি সংস্থার মধ্যে ৫০,০০০ হেক্টরের বেশি জমি ছাড় রয়েছে, তাই ভূমি ছাড় আইনের নীতি অনুসারে এই সংস্থাটি গুরুতর ভুল করেছে ও অবৈধ কাজ করছে।

x