করুনারত্নের ডাবল সেঞ্চুরিতে ছুটছে শ্রীলঙ্কা

0 58
বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কার মধ্যকার ম্যাচ। ছবি : সংগৃহীত

পাল্লেকেলের ব্যাটিং উইকেটে ধুকছেন বাংলাদেশি বোলাররা। এর সুযোগ ভালোভাবেই কাজে লাগাচ্ছেন লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা। এরই মধ্যে ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন স্বাগতিক ওপেনার দিমুথ করুণারত্নে। সেঞ্চুরি করেছেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। দুই সেঞ্চুরিয়ানে ছুটছে শ্রীলঙ্কা।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ তিন উইকেটে ৪৬৯ রান। আর মাত্র ৭২ রানে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ।

 

স্কোরবোর্ডে ৫৪১ রানের বিশাল রান নিয়েই ইনিংস ঘোষণা করেছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মুমিনুল হক। কিন্তু, ব্যাটিংয়ে নেমে শ্রীলঙ্কাও যে তার দাঁতভাঙা জবাব দেবে সেটা কে জানত! ব্যাটিংয়ে নেমে প্রতিরোধ গড়ছেন লঙ্কান ব্যাটাসম্যানেরা। গতকাল শুক্রবার তৃতীয় দিন স্বাগতিকদের তিন উইকেটের বেশি নিতে পারেনি বাংলাদেশ। আজ লঙ্কানদের প্রতিরোধ ভাঙার লক্ষ্যে মাঠে নেমেছে মুমিনুল হকের দল।

 

কিন্তু দিনের প্রথম ঘণ্টায় এখনও উইকেটের দেখা পায়নি বাংলাদেশ। বরং আগের দিন ৮৫ রানে অপরাজিত থাকা দিমুথ করুনারত্নে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। ২৪৭ বলে ক্যারিয়ারের ১১তম সেঞ্চুরি করেছেন তিনি। মূলত বোলিং নিয়ে ভুগছে বাংলাদেশও।

 

পাল্লেকেলেতে গতকাল তৃতীয় দিন শেষে তিন উইকেটে ২২৯ রানে দিন শেষ করে শ্রীলঙ্কা। এর আগে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে সাত উইকেটে ৫৪১ রানে ইনিংস ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। বিপরীতে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার করুনারত্নে ও লাহিরু থিরিমান্নের শক্ত জুটিতে দারুণ শুরু করেছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশি পেসারদের পাত্তা না দিয়ে উইকেটে থিতু হয়ে যান দুই ওপেনার। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা এই জুটি ভাঙেন মিরাজ। থিরিমান্নেকে এলবির ফাঁদে ফেলে সাজঘরে পাঠিয়েছেন এই অফ স্পিনার। ১২৫ বলে আট বাউন্ডারিতে ৫৮ রানে থেমেছেন লঙ্কান ওপেনার।

 

মিরাজের পর স্বাগতিকদের দ্বিতীয় উইকেট নিয়েছেন তাসকিন আহমেদ। ফার্নান্দোকে ২০ রানে আউট করেছেন তিনি। এরপর শেষ বিকেলে আরেকটি স্বস্তি এনে দেন তাইজুল। শ্রীলঙ্কা শিবিরে তৃতীয় আঘাত হানলেন তিনি। টিকতে দিলেন না অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে। ৩২ বলে ২৫ রান করা ম্যাথিউসকে বোল্ড করে সাজঘরে ফিরিয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার। তিন উইকেট হারানোর পর ডি সিলভাকে নিয়ে দিনের বাকি অংশ পার করেন করুনারত্নে।

 

এদিকে প্রথম সেশন পর্যন্ত ৫৪১ রান তুলতে বাংলাদেশ হারিয়েছে সাত উইকেট। ৬৮ রানে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক ও ছয় রানে অপরাজিত ছিলেন তাসকিন। তৃতীয় দিন হাফসেঞ্চুরি করে আউট হন লিটন দাস। মিরাজ ও তাইজুল উইকেটে থিতু হতে পারেননি।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x