কুড়িগ্রামের রৌমারীর এক অসহায় নারীর মুখে লম্বা দাড়ি

২৬৯

মাজহারুল ইসলাম,রৌমারী কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: উপজেলার সদর ইউনিয়নের চুুলিয়ারচর গ্রামের মরিয়ম খাতুন (৩৩) নামের এই নারীর মুখে গজিয়েছে লম্বা দাড়ি। ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার রৌমারী সদর ইউনিয়নের চুুলিয়ারচর গ্রাম নামকস্থানে। সে উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের খেওয়ারচর গ্রামের আলী হোসেনের স্ত্রী বলে জানা গেছে। নারীর মুখে দাড়ি দেখার জন্য উৎসুক জনতা ভির করছে ওই বাড়িতে।

এলাকাবাসি ও পরিবার সুত্রে জানা গেছে,গত ১৫ বছর আগে উপজেলার চুলিয়ারচর গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন আব্দুল মতিন এর ঘরে নাম রেখেছে মরিয়ম খাতুন। তার বিয়ে হয় একই উপজেলার যাদুরচর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস মিয়ার ছেলে আলী হোসেনের সাথে।

বিয়ের ১৫ বছর অতিবাহিত হলেও তাদের ঘরে জন্ম হয়নি কোন ছেলে সন্তান। অভাবের সংসার হলেও দাম্পত্য জীবন ভালোই চলছে। তাদের নিজস্ব কোন জমাজমি না থাকায় অন্যের বাড়িতে বসবাস করছেন। অপর দিকে অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসা নিতে পারছে না মরিয়ম।

তারা সরকারের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। এবিষয় উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা: আসাদুজ্জামান বলেন, নারীর মুখে গোঁফ ও দাড়ি পুরুষের মতো মহিলাদের মুখে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি লোম দেখা দিলে তাকে হিরসুটিজম বলা হয়।

যেকোনো বয়সের মহিলাদের বেলায়ই ব্যাপারটি অত্যন্ত বিরক্তিকর। সাধারন ভাবে মহিলাদের মুখে অতিরিক্ত গোঁফ ও দাড়ি হওয়াকে কোনো-না-কোনো রোগের লক্ষণ বলে ধারনা করা হয়। তবে বংশগত কারনেই এমনটি বেশি হয়ে থাকে।

তাছাড়া মহিলাদের শরীরে এন্ড্রোজেন নামক হরমোনের আধিক্যই এ রোগের কারন। কোনো কারনে যদি হরমোনের মাত্রা মহিলাদের শরীরে বেড়ে যায় তা হলেও তাদের শরীরে এ রকম অতিরিক্ত গোঁফ ও দাড়ি গজাতে থাকে। তবে তারা উন্নত চিকিৎসা নিতে পারে।

দাড়ি গোজানোর বিষয় নিয়ে কথা হয় মরিয়ম খাতুনের সঙ্গে তিনি বলেন বিয়ের আগে এমনটা ছিলেন না, বিয়ের ৫ বছর পর হইতে আমার মুখে দাড়ি গোজাতে শুরু করে, অর্থের অভাবে এর কোন চিকিৎসা নিতে পারিনি।

Comments are closed.