চাটমোহরে নিখোঁজের দুই বছর পর কিশোরী আছমা নিজ বাড়ি ফিরল

0 125

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি: পাবনার চাটমোহরে নিখোঁজের দুই বছর পর কিশোরী আছমা নিজ বাড়ি ফিরল। দুই বছর আগে নিখোঁজ হয় চাটমোহর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের সোন্দভা গ্রামের প্রতিবন্ধী শফিকুল ইসলামের মেয়ে আছমা খাতুন। সে পাবনার চাটমোহর রেল স্টেশন থেকে ট্রেনে চেপে চলে যায় খুলনায়। সেখানে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় এনজিও ‘‘অপরাজেয় বাংলা’র কাছে হস্তান্তর করেন।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

 

সেদিন পুষ্টিহীনতার শিকার আছমা কোন ঠিকানা বলতে পারেনি। অপরাজেয় বাংলা আছমাকে একমাস রেখে নানাভাবে সেবা দিতে থাকে। এক পর্যায়ে তাকে পাঠানো হয় সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত ‘শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে। সেখানেই তাকে দীর্ঘ ২ বছর অবস্থান করতে হয়েছে। শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ হওয়ার পর কিশোরী আছমা জানায় তার বাড়ি হরিপুরের সোন্দভা গ্রামে। এরপর ওই কেন্দ্রের কর্মকর্তারা খোঁজ খবর নিতে থাকে। এখন তার বয়স ১৪ বছর।

 

গত ৩ জানুয়ারি পাবনার চাটমোহর উপজেলা সমাজসেবা দপ্তরে আছমা তার সৎমা ও মামার কাছে ফিরে যায়। উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ রেজাউল করিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এক পর্যায়ে গত ২ জানুয়ারি ওই কেন্দ্রের সাইকোলজিস্ট নুরুল ইসলাম, মোর্শেদা আকতার ও মোবাইনা খাতুন আসেন চাটমোহরে।

 

তারা আছমার ঠিকানা ও হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হন। জানানো হয় কেন্দ্রের উপ-প্রকল্প পরিচালক বিপ¬ব কুমার সাহাকে। গত রবিবার আছমাকে নিয়ে আসা হয় চাটমোহরে। এ প্রতিনিধির কথা হয় কিশোরী আছমার সাথে। আছমা জানান,২ বছর আগে কেউ তাকে ট্রেনে তুলে দিয়ে বলে, তোমার মায়ের কাছে চলে যাও। সে আর কিছু বলতে পারেনি। আছমা এখন সুস্থ। তার সৎমা সালেকা বেগম ও তার মামা তাকে গ্রহণ করেছেন।

 

চাটমোহর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা জানান, সন্ধ্যার দিকে আছমাকে তার সৎমা ও মামার হাতে তুলে দেওয়া হয়। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকেও বিষয়টি অবগত করা হয়েছে। আছমা আসলে অযতœ আর অবহেলার শিকার হয়েছিল। ২ বছরে সে অনেকটাই সুস্থ।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x