চৌহালীতে কাঁচা মরিচের ঝাল ডাবল সেঞ্চুরি, ঝাঁজ বেড়েছে পিঁয়াজেরও

37

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডাবল সেঞ্চুরি পার করেছে কাঁচামরিচের ঝাল । ঝাঁজ বেড়েছে পিঁয়াজেরও ৷ উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে বর্তমানে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২১০ টাকায়। সাত দিন আগেও কাঁচামরিচের কেজি ছিল ১৫৫ থেকে ১৬০ টাকা।

আর পিঁয়াজ ছিল ৪২ থেকে ৫৫ টাকা কেজি ৷এ দিকে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে দাম বাড়ছে। এতে নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষের পক্ষে কাঁচা মরিচ ও পিঁয়াজ কেনা অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, সরবরাহ কম এবং উৎপাদন নষ্ট হওয়ার কারণে দাম বেড়েছে। দাম বৃদ্ধিতে বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ।

মঙ্গলবার ( ১৬ আগস্ট) উপজেলার সদর জোতপাড়া বাজার ও হাসপাতাল মোড় বাজার ও কেআর পাইলট মডেল সরকারি স্কুল মোড় বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ কোথাও ২০০ টাকা, কোথাও ২১০ টাকা, আবার কোথাও ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি কেজি পিঁয়াজ কোথাও ৫৫ থেকে ৬০ টাকা আবার কোথাও ৬০ থেকে ৬৫ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে ৷ গত এক সপ্তাহ আগেও এ উপজেলার হাট-বাজারে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

পিঁয়াজের দাম ছিলো ৪০ থেকে ৪৫ টাকা ৷(দুই দিন আগেও বিক্রি হয়েছে ১৮০ টাকা)। আর মঙ্গলবার সেই কাঁচা মরিচের দাম ২০০ থেকে ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পিঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ টাকা ৷

বাজার করতে আসা খাষকাউলিয়া ইউনিয়নের মোঃ নবী বলেন, আমি খাষকাউলিয়া কে আর পাইলট মডেল সরকারি স্কুল মোড় বাজার থেকে ২কেজি পিঁয়াজ কিনলাম ১২০টাকা দিয়ে ৷ হাট-বাজারে কাঁচা মরিচ ও পিঁয়াজ যথেষ্ট পরিমাণ রয়েছে। কিন্তু তারপরও ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফার আশায় মাত্রাতিরিক্ত দামে বিক্রি করছেন।

যার ফলে নিম্ন আয়ের মানুষের পক্ষে কাঁচা মরিচ ও পিঁয়াজ কেনা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। প্রতিদিন বাজারে কোনো না কোনো পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখন কাঁচামরিচ ও পিঁয়াজের বাজারে আগুন লেগেছে। দুই সপ্তাহ আগে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে ২২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

জাতপাড়া বাজারের কাঁচা মালের ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান ও মোঃ ইয়াকুব বলেন,‘হাট-বাজারে কাঁচা মরিচের যোগান কমের কারণে দাম বেড়েছে। যোগান বাড়লে দাম কমে যাবে। আমরা যেখান থেকে কাঁচা মরিচ কিনে থাকি, বর্তমানে সেখানেই দাম বেশি। যার জন্য বেশি দামে খুচরা বাজারে বিক্রি করতে হচ্ছে। উৎপাদন বাড়লে দাম কমে যাবে।’

চৗহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ আফসানা ইয়াসমিন বলেন, ব্যবসায়ীরা বাজারে কাঁচা মরিচ ও পিঁয়াজের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে দাম বাড়ালে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে।

x