ছোট বোনের শরীর বিক্রি করে ব্যবসা চালাত আপন বড় বোন

0 204

দুই বছর যাবৎ ছোট বোনের শরীর বিক্রি করে ব্যবসা চালাত আপন বড় বোন। দেহ ব্যবসায় বোনকে পাঠানোর আগে তাকে নেশায় আচ্ছন্ন করে রাখতো নির্যাতিতার ২০ বছর বয়সী বড় বোন। এই সাংঘাতিক ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশের ভোপালে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

সম্প্রতি দেহ ব্যবসার বিষয়টি তার মা জানতে পারলে তিনি পুলিশে অভিযোগ করেন। পুলিশ ইতিমধ্যেই ঘৃণ্য কাজের সাথে সম্পৃক্ত থাকায় তার বোনসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে।

নির্যাতিতা কিশোরীর মায়ের অভিযোগ, একবার দু-বার নয়। বেশ কয়েকবার তার ছোট মেয়েকে বিক্রি করে দিয়েছে বড় মেয়ে। সেখানে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে সে। পাশাপাশি, ড্রাগের নেশা করাও বোনকে শিখিয়েছে তার দিদি।

ওই নাবালিকা জানিয়েছেন, ১৩ বছর বয়সে বোন তাকে নেশা করা শেখায়। তখন থেকে প্রায় দুই বছর আলাদা আলাদা লোকের কাছে বিক্রি করে দিত। কিন্তু নেশার ঘোরে থাকায় সে কাউকেই বিষয়টা জানাতে পারেনি। তবে পরে বিষয়টি বুঝতে পারলেও তার বোনের দেখানো নানা রকমের ভয়ে চুপ থাকতো সে।

তবে ঘটনা জানাজানি হয়, যখন ওই কিশোরীর মা তার ছোট মেয়েকে ড্রাগ থেকে বাঁচাতে একটি এনজিওতে ভর্তি করে। প্রথমে বিষয়টি ওই এনজিও’র কর্মীরা জানতে পেরে নির্যাতিতার মাকে জানায়। পাশাপাশি তারা নারী পাচার, ধর্ষণ-সহ একাধিক ধারায় বড় বোনের নামে মামলা দায়ের করেন।

এদিকে, কিশোরীর কথার ওপর ভিত্তি করেই থানায় নিজের বড় মেয়ে-সহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন মা। সেখানে ওই কিশোরীর ২০ বছর বয়সী বোনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ-সহ ভারতীয় বিধান অনুযায়ী মামলা করা হয়। পরে মামলাটি আদালতে পেশ করা হলে পুলিশ তাদের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x