জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা ও সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে

48

বাংলাদেশে তাপমাত্রা ও সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, সেইসাথে ঘন ঘন বন্যা, অনিয়মিত বর্ষা এবং ঘূর্ণিঝড়ের তীব্রতা বৃদ্ধি সহ জলবায়ু পরিবর্তনের দ্বারা বিরূপভাবে প্রভাবিত হওয়া দেশগুলির মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। পরিবেশবিদরা বলছেন যে দেশের অবস্থান এবং এর সমতল ও নিম্নভূমির ভূ-সংস্থান এবং উচ্চ জনসংখ্যার ঘনত্ব সবই জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব অনেক বেশি করতে অবদান রেখেছে। অনেক চাষের জমি জলের নিচে তলিয়ে গিয়েছে, যা আগে দৈনন্দিন কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে। সূত্র: A24 News Agency

এই জলাবদ্ধতা অ্যালার্জি এবং অন্যান্য রোগের কারণ। ক্লিনিক পরিচালনাকারী আলীমুন রাজীব বলেন, জলাবদ্ধতার কারণে কলেরা ও ডায়রিয়ার মতো পানিবাহিত রোগের প্রকোপ বেড়েছে এবং এসব রোগের বিস্তার নিয়ন্ত্রণ করা আরও কঠিন হয়ে পড়ছে।

স্থানীয়রা জানান এর ফলে ভুগছেন তারা। আশাসনি গ্রামের ভাঙন কবলিত আশরাফ মুরুল ক্ষয়প্রাপ্ত নদীর পানি দেখিয়ে বলেন, “ওটা ছিল গ্রামের রাস্তা। আমাদের বিশাল জমি ছিল। শক্তিশালী আমপাং ঘূর্ণিঝড়ের সময় আমরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলাম। আমরা কয়েকজন জায়গা ছেড়ে চলে গেছি।” কৃষক আব্দুস সাত্তার সরদার বলেন, “আমাদের পুরো এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে এবং জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

সেই জলাবদ্ধতায় আমাদের গোসল করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না। জমে থাকা জলের ফলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন অ্যালার্জিজনিত রোগ এবং রোগের সংক্রমণ হচ্ছে। আমাদের হাত, পা, কোমর এবং পিঠ দেখুন। অ্যালার্জি এবং সংক্রমণের দাগ আমাদের সমস্ত শরীর জুড়ে আছে।” স্থানীয় ইমাম হাফেজ মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম বলেন, “এটি ছিল প্রতাপনগর হাওলাদার বাড়ি বাইতুন নাজ জামে মসজিদ । প্রতাপনগর বাঁধ ভেঙে যাওয়ার কারণে পানির তোড়ে এটি নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। এই মসজিদের চারপাশে সাতটি ঘর ছিল। সব নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে।”

বাঁধভাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্ত মহিলা রাশিদা বেগম, তিনি জানান, “আগে আমাদের বাড়ি বাঁধের ধারে ছিল। বাঁধ ভেঙ্গে সেই বাড়িটি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার পর, আমি এবং আমার প্রতিবন্ধী স্বামীকে এখানে ছয় মাসের জন্য থাকতে দেওয়া হয়েছিল। এখন আমরা গৃহহীন।” জলবায়ুর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সব পেশার মানুষ। জেলে মোঃ রবিউল ইসলামের অবস্থাও একই, “আমরা এখানে মাছ ধরতাম। এখানে রুই, কাতলা, বাগদা চিংড়ি সহ অনেক মাছ ছিল; আমরা মাছ ধরে জীবন কাটাতাম। এখন নোনা পানির কারণে আশেপাশে ছোট ছোট চিংড়ি ছাড়া আর কোনো মাছ নেই; অন্য কেউ জীবিকা নেই।”

কমিউনিটি ক্লিনিক কর্মকর্তা জনাব আলীমুন রাজীব বলেন, “এখানে মানুষ টাইফয়েড, কলেরা, জন্ডিস ইত্যাদি জলবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এই ধরনের রোগ এই এলাকায় আগে কখনো দেখা যায়নি। অ্যালার্জিজনিত রোগ নিয়ন্ত্রণ করা আমাদের জন্য ধীরে ধীরে কঠিন হয়ে পড়ছে। আমরা আগে যে প্রাথমিক চিকিৎসা দিতাম তার মাধ্যমে এই ধরণের রোগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারব না। এসব পানিবাহিত রোগে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন নারীরা। জলাবদ্ধতায় গোসল করা মহিলারা লিউকোরিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন, যা আগে আমরা এতটা পাইনি।“

উপ-কৃষি কর্মকর্তা মজিবর রহমান বলেন, দেশে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার পর পানিতে লবণাক্ততা বেড়ে গেছে, ফসল মরে যাচ্ছে এবং চাষাবাদ করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। জলবায়ু পরিবর্তন দেশের সম্পদকে চ্যালেঞ্জ করছে এবং এর উদ্ভিদ ও প্রাণী হত্যা করছে সাথে সরাসরি খাদ্য নিরাপত্তাকে প্রভাবিত করছে।

তিনি জানান, “আম্পাং ঘূর্ণিঝড়ের পর সাতক্ষীরায় দু’জন সরকারি বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এসেছেন। ল্যাবরেটরিতে আমিও ছিলাম। এখানকার পানিতে লবণের হার ২০পিপিটি-এর বেশি এবং সাধারণত ফসলের জন্য মাটিতে ৭-৮ পিপিটি লবণের হার প্রয়োজন। মাটিতে অম্লতার এই অত্যধিক উপস্থিতির কারণে, চাষ করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক মোঃ হারুনুর রশিদ খান বলেন, “যদিও বাংলাদেশ দূষণকারী দেশ নয় এবং জলবায়ু পরিবর্তনে অবদান রাখে না, তবুও এর খারাপ প্রভাব এ দেশকে মোকাবেলা করতে হয়, “মানব স্থানান্তরিত হওয়া এবং উপকূলীয় এলাকায় মাটির লবণাক্ততা বৃদ্ধি সেই এলাকার ফসলের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। আর আবাসস্থলের পরিবর্তন জলবায়ু পরিবর্তনের একটি তাৎক্ষণিক প্রভাব। ফসলের ক্ষেত্রে লবণাক্ত সহনশীল জাত উদ্ভাবন করতে পারলে সমস্যা অনেক কমে যাবে। জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য বাংলাদেশ ততটা দায়ী নয় কিন্তু আমরা বাকি বিশ্বের কার্যকলাপের কারণে ক্ষতিকারক জলবায়ুতে ভুগছি।”

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন: http://Youtube Link: https://youtu.be/IYtfPQVO1-Y

x