জাতিসংঘের প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান মিয়ানমারের

314

রোহিঙ্গা ইস্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে গণহত্যায় দায়ে মিয়ানমারের শীর্ষ সেনা কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করে জাতিসংঘের স্বাধীন আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন যে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তা প্রত্যাখ্যান করেছে মিয়ানমার।

মিয়ানমারের অনলাইন দ্য ইরাবতী’র এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, মিয়ানমারের তরফ থেকে জাতিসংঘ মিশনের ওই তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে বুধবার (২৯ আগস্ট) একটি বিবৃতি দিয়েছে মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট অফিসের মুখপাত্র ইউ জ্য হ্যাই।

মিয়ানমার প্রেসিডেন্ট অফিসের এ মুখপাত্র বলেন, ‘ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশনের প্রতিবেদনের ব্যাপারে সরকারের ‘একটি স্পষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি’ রয়েছে। মিয়ানমার জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল (ইউএনএইচআরসি)-এর সমাধানের প্রস্তাব গ্রহণ করেনি। তাই এটি বাস্তবায়নের ব্যাপারে মিশনের প্রস্তাব আমরা প্রত্যাখ্যান করছি’।

তিনি বলেন, ‘গেল বছর থেকেই মিয়ানমার ইউএনএইচআরসি’র সমাধান প্রস্তাব থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন এবং ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশন গঠনের বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছে’।

মুখপাত্র ইউ জ্য হ্যাই বলেন, ‘যখন মিশন মিয়ানমার সফরের জন্য অনুমতি চেয়েছিল, আমরা তাদের অনুমতি দেইনি। তাদের আমরা জানিয়েছিলাম যেহেতু আমরা সমাধান সূত্রতে সম্মত নই, তাই সহযোগিতা করবো না’।

সোমবার (২৭ আগস্ট) জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের তদন্ত প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের হত্যা, ধর্ষণ, গণহত্যা, মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধসহ বিভিন্ন অপরাধের কথা উল্লেখ করা হয়। প্রতিবেদনে এইসব অপরাধের জন্য মিয়ানমারের সেনাপ্রধান সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লেইংসহ আরও পাঁচজনকে বিচারের মুখোমুখি করতে বলা হয়।

এছাড়া রাখাইনে সংঘটিত অপরাধ বন্ধে হস্তক্ষেপ করতে ব্যর্থ হওয়ায় দেশটির ডি ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চি’রও সমালোচনা করা হয়েছে মিশনের প্রতিবেদনে।

গত বছরের আগস্টে মিয়ানমারের বেশ কিছু সেনাপোস্টে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাখাইনে অভিযান চালায় মিয়ানমার সেনারা। অভিযানের নামে সেখানে রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়, নারীদের ধর্ষণ করা হয়, নির্বিচারে গুলি করে বহু মানুষকে হত্যা করা হয়। ফলে আতঙ্কিত রোহিঙ্গারা নিজেদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/

x