টানা বৃষ্টিতে পাইকগাছায় ফসলের ক্ষতিসহ নিন্মএলাকা তলিয়ে গেছে

41

ইমদাদুল হক,পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে মঙ্গলবার থেকে শুর হওয়া টানা বৃষ্টিতে পাইকগাছার নিম্ন এলাকা তলিয়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। পৌর সদরসহ বিভিন্ন ইনিয়নের পর্যাপ্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় রাস্তা ও বাড়ির উঠান পানিতে তলিয়ে একাকার হয়ে গেছে। একটানা বর্ষণে জন-জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এলাকার নিম্নঞ্চল প্লাবিত হয়ে মৎস্য,কৃষি ও নার্সারী ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

একটানা বৃষ্টি ও দমকা হাওয়ায় আউশ ধান পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।আমন ধানের বীজতলা,আমন ধানের রোপনকৃত ক্ষেত,নার্সারী ক্ষেত ও বিভিন্ন সবজি ও ফসলের ক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে। বেড়িবাধের বাহির ও নিম্ন এলাকার মৎস্য ঘের তলিয়ে গেছে।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা পবিত্র কুমার দাস বলেন, এলাকার মৎস্য চাষিরা নিয়ম মাফিক ঘেরের বাধ নির্মান করে না । ভারি বৃষ্টি হলে নিচু এলাকা ও মৎস্য ঘেরগুলো তলিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত ঘের তলিয়ে যাওয়া বা মাছ ভেসে যাওয়ার কোন অভিযোগ করেনি। তবে আমরা খোজ নিচ্ছি।

উপজেলার কমলাপুর গ্রামের কৃষক মুজিবার বলেন, ঘের মালিকরা তাদের ঘেরের পানি সময় মত না কমানয় কৃষকরা ধানের বীজতলা তৈরী করতে দেরি হয়েছে। ভারি বৃষ্টিতে অধিকাংশ বীজতলা পানিতে তলিয়ে গেছে, বীজতলা নিয়ে তারা হতাশায় দিন কাটাচ্ছে । তাড়াতাড়ি পানি না সরলে কমলাপুর গ্রামের শতাধিক কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হবে। আমন ধান রোপনের জন্য তাদের নতুন করে বীজতলা তৈরী করতে হবে। এতে তারা আর্থিক ভাবে ক্ষতির মুখে পড়বে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসের উপসহকারী কৃষি কর্র্মকতা মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, টানা বৃষ্টিতে ফসলের তেমন কোন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। ভারি বৃষ্টিতে তলিয়ে যাওয়া আমনবীজ তলা ও রোপনকৃত ক্ষেতের পানি সরে গেলে ফসলের ক্ষতি হবে না। টানা বর্ষণে বোয়ালিয়া বীজ উৎপাদন খামারের রোপনকৃত ৪০ একর আমন ধানের ক্ষেতের মধ্যে ৩৪ একর পানিতে তলিয়ে গেছে।

তাছাড়া এলাকার পানি খামারের উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় নতুন রোপনকৃত ধানের চারা পানিতে ভেসে যাচ্ছে। এ ব্যাপাওে বোয়ালিয়া বীজ উৎপাদন খামারের সিনিয়র সহকারী পরিচালক মোঃ হারুন বলেন, খামারে এ পর্যন্ত ৪০ একর আমন ধানের চারা রোপন করা হয়েছে।

রোপনকৃত ক্ষেত থেকে আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে পানি নিষ্কাষন হলে রোপনকৃত চারা খুববেশি ক্ষতি হবে না। তবে খামারের উপর দিয়ে পানির স্রোত বয়ে যাওয়ায় রোপনকৃত চারা উপড়ে পানিতে ভেসে গেছে। ভেসে যাওয়া ধানের চারা জায়গায় নতুন চারা রোপন করতে হবে।

তবে পানি নিষ্কাষন না হওয়া পর্যন্ত কেমন ক্ষতি হয়েছে তা এ মুহূর্তে বলা সম্ভব হচ্ছে না। পানি সরে গেলে খামারে পরিবেশ বুঝে নতুন করে ধানের চারা রোপন করা হবে।

x