দুর্গাপূজায় আসছে ‘হরিবোল’ সিনেমার গান

0 33

আনিসুজ্জামান নিবেদিত ও বলেশ্বর ফিল্মস প্রযোজিত ‘হরিবোল’ নামের সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা রেজা ঘটক। সিনেমাটির সংগীত পরিচালনা করেছেন ভারতের বিশিষ্ট সংগীতজ্ঞ, গীতিকার, সুরকার ও সুগায়ক অংশুমান।

আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজায় ‘হরিবোল’ সিনেমার গান প্রকাশ করছে জি সিরিজ ও অগ্নিবীণা প্রোডাকশন হাউজ।

সিনেমাটির গানগুলোতে কণ্ঠ দিয়েছেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত ও জনপ্রিয় শিল্পী বাউল শফি মণ্ডল ও বাউল নলীনি মণ্ডল এবং ভারতের জনপ্রিয় লোকগানের শিল্পী সাত্যকি ব্যানার্জি, অংশুমান, অর্পিতা, অনিমেষ, অরুন্ধতি ও সিনজিনী। সংগীতজ্ঞ অংশুমানের কম্পোজিশানে ‘হরিবোল’ সিনেমায় ব্যবহৃত গানগুলোর গীতিকার ও সুরকার হলেন যথাক্রমে লালন শাহ, ভবা পাগলা ও অংশুমান।

‘হরিবোল’ সিনেমার গান প্রকাশ উপলক্ষ্যে এর নির্মাতা রেজা ঘটক বলেন, ‘এর গানগুলো এবারের দুর্গাপূজার উৎসবকে আরো আনন্দময় করে তুলবে। বিশেষ করে বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালের দুর্গোৎসবকে রাঙানোর পাশাপাশি সারা বিশ্বের সংগীত শ্রোতাদের জন্য ‘হরিবোল’ সিনেমার গানগুলো নতুন মাত্রা যোগ করবে। ’

 

সিনেমাটির গানগুলোতে আবহমান বাংলার লোকসংগীতকে সম্পূর্ণ নতুন আঙ্গিকে তুলে ধরা হয়েছে, যা লাখ লাখ শ্রোতাদের হৃদয় জয় করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

 

দুর্গাপূজায় ‘হরিবোল’ সিনেমার গান প্রকাশ উপলক্ষে এর সংগীত পরিচালক অংশুমান বলেন, ‘এবারের দুর্গাপূজা আমার জন্য একটু ভিন্নমাত্রার আনন্দ ও উচ্ছ্বাসের। গানগুলো শ্রোতাদের হৃদয় জয় করলে তা হবে আমার জন্য সবচেয়ে বড় আশির্বাদ। যাদের নিয়ে আমি গানগুলো করেছি, তারা সবাই বেশ দরদ ও আন্তরিকতা দিয়ে গানগুলোকে ধারণ করে পরিবেশন করতে পেরেছে। কাজটি করে আমি বেশ আনন্দিত। আশা করি, শ্রোতাদেরও গানগুলো ভালো লাগবে। ’

 

কণ্ঠশিল্পী বাউল শফি মণ্ডল বলেন, ‘এই সিনেমায় আমি যে গানটি করেছি, আমার কখনো মনে হয়নি এটা কোনো সিনেমার গান, বরং বারবার মনে হয়েছে এটি প্রকৃতির গান, আমার গান। এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গানটি নিয়ে আমি প্রকৃতির মাঝেই ছিলাম। আমি খুব ভালো লাগা থেকে, খুব ভালোবাসা থেকেই গানটি করেছি। আশা করি গানটি শ্রোতাদের হৃদয় জয় করবে। ’

 

সাত্যকি ব্যানার্জি বলেন, ‘এতে ভবা পাগলার যে গানটি আমি করেছি, এটি খুব উচ্চমার্গীয় একটি বাংলা লোকগান। এই সিনেমার জন্য এ ধরনের একটি গান সিলেকশানের জন্য নির্মাতাকে আমি সাধুবাদ জানাই। গানটি দর্শক হৃদয় জয় করলেই আমি খুশি। ’

 

এ প্রসঙ্গে জি সিরিজের কর্ণধার নাজমুল হক ভুঁইয়া খালেদ বলেন, দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে ‘হরিবোল’ সিনেমার গান প্রকাশের অংশ হতে পেরে আমরা আনন্দিত। আশা করি, সংগীত শ্রোতাদের জন্য এর গানগুলো ভীষণ সাড়া ফেলবে এবং শ্রোতাদের মনোরঞ্জনের খোরাক জোগাবে। বাংলা সিনেমায় এ ধরনের গানকে আমি কালজয়ী হতে দেখেছি। ‘হরিবোল’ সিনেমার গানগুলোতে সে ধরনের টেস্ট আছে। ’

 

নির্মাতা রেজা ঘটক জানান, ‘এই সিনেমায় একটি সংখ্যালঘু মতুয়া পরিবারের চিত্র দেখানো হয়েছে। পাশাপাশি সিনেমায় মুক্তিযুদ্ধের সময়কার একজন বীরাঙ্গনার গল্পও প্যারালালি বলা হয়। আবার এটি একটি নদী বিষয়ক বিশেষায়িত সিনেমা। সংখ্যালঘু মতুয়া পরিবারটির সঙ্গে বলেশ্বর নদের সমান্তরাল ঘটনাপ্রবাহ এতে স্থান পেয়েছে। নদী, মাটি, প্রকৃতি, মানুষ এবং এদের নিরন্তর টানাপড়েন ও সংঘাত ‘হরিবোল’ চলচ্চিত্রে দেখা যাবে। ’

 

নির্মাতা রেজা ঘটক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘২০১৯ সালের ১০ ডিসেম্বর সিনেমাটি সেন্সর বোর্ডে জমা দেওয়া হয়। কিন্তু বিএফডিসি’র কথিত ছাড়পত্রের অযুহাত দেখিয়ে এখন পর্যন্ত আমাকে সেন্সর সনদপত্র দেওয়া হয়নি। অথচ বাংলাদেশের চলচ্চিত্র সেন্সর আইনের কোথাও বিএফডিসি’র ছাড়পত্রের কোনো গেজেট নাই। বরং এই কথিত ছাড়পত্রের নামে এটা সেন্সর বোর্ডের নেতৃত্বে বিএফডিসি, চলচ্চিত্র প্রযোজনা ও পরিবেশক সমিতি এবং চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির একটি চতুর্মুখী সিন্ডিকেটের চাঁদাবাজির কৌশল। এই সিন্ডিকেটের কারণে এদেশে ভালো সিনেমা নির্মাণের সুযোগ নাই। বাংলাদেশে ভালো চলচ্চিত্রের স্বার্থে এ ধরনের সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য বন্ধ হওয়া জরুরি।

 

Leave A Reply

Your email address will not be published.