ধামইরহাটে খাস জমি পত্তন নিয়ে খাল খনন, হুমকির মুখে বন ও গ্রামবাসী

0 32

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর ধামইরহাটে নদীর তীরবর্তী চকনোটি মৌজার ছিলিমপুর গ্রামে পাশে আত্রাই নদী। বিভিন্ন দুর্যোগে ও বান বন্যায় নদী ভাঙ্গনে অনেক পতিত জমি নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে সৃষ্ট বন্যায় ওই এলাকার রাঙ্গামাটি, ছিলিমপুর, নন্দনপুর, বস্তাবর সহ নদী সংলগ্ন এলাকার মানুষ গুরুত্বর কষ্ট ভোগ করে।

নদী তীরবর্তী ওই স্থানে বরিশষ্য চাষাবাদের জন্য সরকারী খাস জমি পত্তন গ্রহণ করে স্থানীয় উদয়শ্রী বেড়ীতলা গ্রামের মৃত খইমুদ্দিনের ছেলে জামাল উদ্দিন। তিনি ওই জমিতে চাষাবাদের পরিবর্তে অবৈধভাবে জমিটি নিজের দাবী করে করছেন খনন কাজ। টাকার বিনিময়ে নদীর পারে অবস্থিত ওইসব সরকারী খাস জমিতে বনবিভাগের রোপিত গাছের ক্ষতি করে, বিভিন্ন ফসলের ক্ষতি করে অতিলোভে অবৈধভাবে বালি-মাটি উত্তোলন করছেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এ বিষয়ে জামাল উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে কথা বলা হলে তিনি ঘটনাস্থলে আসতে অস্বীকার করে বলেন, ‘জমিটি আমার বাপের জমি, আপনারা ছবি তুলে কি করবেন করেন, যত রিপোর্ট- আছে করেন, তাতে আমার কোন সমস্যা নেই।”

একই কায়দায় ছিলিমপুর গ্রামের মৃত ইব্রাহীমের ছেলে মানিক হোসেন বিভিন্ন জায়গা ক্ষতি করে গভীর গর্ত করে মাটি-বালি খনন করে অবৈধ উপার্জন করছেন। এই খনন অব্যাহত থাকলে ওই এলাকার শত শত ঘরবাড়ী ও জমির অপূরনীয় ক্ষতি সাধিত হবে।

স্থানীয় ছিলিমপুর গ্রামের বাশু শেখের ছেলে কাশেম আলী ও নন্দনপুর গ্রামের ইব্রাহীমের ছেলে দইমদ্দিন সহ অন্যান্য গ্রামবাসীরা অভিযোগ করে বলেন, জামাল তার প্রভাব খাটিয়ে অবৈধভাবে বালি-মাটি উত্তোলন করতে থাকলে আসন্ন বর্ষাকালে নদীর ¯্রােতের পানি চাষাবাদের জমিতে প্রবেশ করে ব্যাপক ফসলের ক্ষতি ও নদীর পানিতে বাড়ীঘরের অপূরনীয় ক্ষতির আশংকা রয়েছে।

উপজেলা বনবিট কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান বলেন, ‘পতিত ও ই জমিতে সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে গাছ রোপন করা হয়েছে, সেখানে উপকারভোগীরা তা পরিচর্যা ও দেখভাল করে, কিন্তু যেভাবে সেখানে গভীর গর্ত করে খনন কাজ চালাচ্ছে, তাতে মারাত্বক ক্ষতির সম্মুখীন হবে বনবিভাগ ও ওই এলাকার সাধারণ মানুষ, বনবিভাগ এই বিষয়ে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায় বলেন, ‘আমি সেখানে তদন্তের জন্য প্রতিনিধি পাঠাচ্ছি, বনবিভাগ বা সরকারী সম্পত্তির ক্ষতি হলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

 

এমপি শহীদুজ্জামানের উদ্যোগে চা-পান দোকানী ও বেকার ১ হাজার শ্রমিককে ত্রান বিতরণ

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর ধামইরহাটে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও নওগাঁ-২ আসনের এমপি মো. শহীদুজ্জামান সরকারের নিজ উদ্যোগে চা-পান দোকানী ও বেকার ১ হাজার শ্রমিককে ত্রান বিতরণ করা হয়েছে। ২৪ এপ্রিল সকাল ১০ টায় বীরগ্রাম দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বীরগ্রাম, বস্তাবর, রাঙ্গামাটি বাজার, আগ্রাদ্বিগুন, খেলনা বাজার ও শিমুলতলীঘাটের ব্যবসায়ী ও উপজেলা ৮টি ইউনিয়নের বেকার ১ হাজার শ্রমিককে ২য় পর্যায়ে নিজ উদ্যোগে ৫ কেজি চাল, আধা কেজি করে মসুরডাল ও ছোলা বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেন। পরে সাংসদ শহীদুজ্জামান সরকার উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ফাঁকা মাঠে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে উক্ত খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সম্পন্ন করেন। ইতিপূর্বে তিনি নিজ উদ্যোগে ৫ হাজার অসহায় শ্রমজীবি ও খেটে খাওয়া কর্মহীনদের মাঝে চাল,ডাল, তেল আলু, লবন-সাবান বিতরণ করেন।

বিতরণকালে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজাহার আলী, ধামইরহাট উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো.দেলদার হোসেন, সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য নুরুজ্জামান হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল হক সরকার, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র আমিনুর রহমান, আলমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, সম্পাদক ওসমান গনি, সিনিয়র সাংবাদিক এম এ মালেক, উপজেলা প্রেস ক্লাব সভাপতি আবু মুছা স্বপন, সাংবাদিক পাস্কায়েল হেমরম, সাইফুল ইসলাম, জাহিদ হাসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

ধামইরহাটে ভোর সকালে বাড়ীতে হামলা-শিশু অপহরন চেষ্টার মামলায় আটক-৪

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর ধামইরহাটে ভোর সকালে যুবকের বাড়ীতে হামলা চালিয়ে বাড়ীঘর ভাংচুর ও লুটপাট করেছে দূর্বুতত্তরা, এ সময় নগদ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে দূর্র্বুত্তরা, চেষ্টা করে শিশু অপহরণের। এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে ভুক্তভোগী। থানা পুলিশ এই অভিযোগে ৪ জনকে আটক করেছে।

ভুক্তভোগী জানান, ২৪ এপ্রিল ভোর ৬ টার দিকে নানাইচ কুড়ানু পাড়ার তাফাজুদ্দিনের ছেলে ওমর ফারুক স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় বাড়ীতে ছিলেন। এ সময় ওমর ফারুকের বাড়ীতে জয়পুরহাট জেলার দোগাছী ইউনিয়নের পেচুলিয়া গ্রামের আব্দুল হাকিমের স্ত্রী বেলী আকতার ও তার মেয়ে-ছেলে এবং ভাড়াটিয়া মাস্তান নিয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে বাড়ীঘর ভাংচুর করে, ঘরে ভাংচুর চালিয়ে নগদ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে। এ সময় ওমর ফারুকের শিশু সন্তান আলিফ হোসেন সিয়াম (৫)কে অপহরণের চেষ্টা করলে স্থানীয়রা গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে রাস্তা থেকে অপহরণ কারী বেলী আকতার, বেলী আক্তারের মেয়ে আরিফা আকতার দোলা, ছেলে শিহাব ও মাস্তান শাকীলসহ তাদেরকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। ভিকটিম শিশুর বাবা ওমর ফারুক বাদী হয়ে ধামইরহাট থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

ধামইরহাট থানার ওসি শামীম হাসান সরদার জানান, বাদীর সাবেক স্ত্রী আরিফা আকতার দোলা অন্যত্র বিবাহ হয়ে ঘর সংসার করাকালে সাবেক স্বামী ও বাদী ওমর ফারুকের বাড়ীতে হামলা-চুরি এবং শিশু অপহরনের চেষ্টা করে অপরাধ করেছেন, এ বিষয়ে ভিকটিম শিশুর বাবা ওমর ফারুক থানায় অভিযোগ করা হলে মামলা রুজু করা হয়েছে।

উল্লেখ্য গত প্রায় ২ বছর পূর্বে ওমর ফারুকের সাবেক স্ত্রী আরিফা আক্তার দোলার সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে, আরিফা আক্তার দোলাও অন্যত্র বিবাহ করে ঘর সংসার করছিল, কিন্তু সন্তানের নিরাপত্তার কথা ভেবে উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে স্থানীয় জাহানপুর ইউপি চেয়ারম্যান ওসমান আলীর নিকট দিয়ে গেলে ওমর ফারুক সন্তানকে নিজ হেফাজতে লালন পালন করছিলেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ওসমান আলী বাড়ী ভাংচুর করে লুটপাট ও শিশু অপহরণ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওমর ফারুকের বাড়ী যে হামলা চালানো হয়েছে, তা ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.