পদ্মা সেতুর পাশে হবে ক্রীড়াপল্লি ও অলিম্পিক কমপেক্স

৩১২
বিওএর মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। ছবি : সংগৃহীত

পদ্মা সেতু দেশের খেলাধুলার জগতে স্বপ্নের নতুন দ্বার উন্মোচন করবে বলে মনে করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের (বিওএ)  মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা।  পদ্মা  সেতু  নির্মাণের জন্য  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে শাহেদ রেজা বলেন, ‘নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মতো বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন আমাদের বড় স্বপ্ন দেখাচ্ছে।’

গতকাল শনিবার পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাই সারা দেশের মতো বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনেও উৎসবের আমেজ। বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে অলিম্পিক ভবন। এছাড়াও বিওএর পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম সংলগ্ন এলাকায় দুস্থ ও ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।

অলিম্পিক এসোসিয়েশনের মহাসচিব আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগেই পদ্মা সেতুর পাশে ক্রীড়াপল্লি ও অলিম্পিক কমপেক্স নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। এই সেতুকে ঘিরে চলছে নানান নির্মাণযজ্ঞ। তাতে বাদ পড়েনি খেলাধুলাও। পদ্মার চরাঞ্চলে অলিম্পিক ভিলেজ নির্মাণের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। এক হাজার একর জমিতে মাটি ভরাটের কাজ চলছে অলিম্পিক ভিলেজ নির্মাণের জন্য। আগামী দিনে এই ক্রীড়াপল্লিতেই হবে ক্রীড়াবিদদের উন্নত প্রশিক্ষণ ও নিবিড় অনুশীলন। হবে খেলাধুলার আয়োজন।’

দক্ষিণ এশিয়ান গেমস (এসএ) আয়োজন করলেও এখন পর্যন্ত এশিয়ান গেমসের মতো বড় ক্রীড়া আসর আয়োজনে স্বাগতিক হতে পারেনি বাংলাদেশ।

পদ্মার পাড়ে ক্রীড়াপল্লি ও অলিম্পিক ভিলেজ হলে একদিন বাংলাদেশও বড় কোনো বৈশ্বিক আসরের স্বাগতিক হতে পারবে প্রত্যাশা করে শাহেদ রেজা বলেন,  ‘পদ্মা সেতু আমাদের বড় স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছে। আর তা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বগুণে। পদ্মার চরে ক্রীড়াপল্লি ও অলিম্পিক ভিলেজ নির্মিত হলে আমাদের ক্রীড়াবিদরা সেখানে অনুশীলন করতে পারবে, তারা আগামীতে দেশের জন্য সুনাম বয়ে নিয়ে আসবেন।’

Comments are closed.