পবিত্র ঈদুল আজহায় ৬ জুলাই থেকে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন চালুর উদ্যোগ নিয়েছে পাবনার পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে দপ্তর

১৭৪
আটঘরিয়া(পাবনা)প্রতিনিধি : আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহায় ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন চালুর উদ্যোগ নিয়েছে পাবনার পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে দপ্তর। পশু খামারিদের ভোগান্তি কমিয়ে স্বল্প খরচে প্রান্তিক খামারির পশু ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে দিতে এ উদ্যোগ বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
মঙ্গলবার (২৮ জুন) রাতে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শাহীদুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।
জানা গেছে, ঈদের কয়েক দিন আগে থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকা পর্যন্ত ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনটি চলবে।
আগামী বুধবার (৬ জুলাই) থেকে গবাদি পশু পরিবহন শুরু করবে ট্রেনটি।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে পাকশী বিভাগীয় দপ্তরের বাণিজ্যিক সূত্রে জানা যায়, কোরবানির ঈদের আগে ট্রাকে করে গরু পরিবহন করে ঢাকা যেতে প্রায় ২৪ থেকে ৩০ ঘণ্টা সময় লাগে।
ট্রাক থেকে গরুগুলো নামাতে কষ্ট হয়। ট্রেনে সহজেই ওঠানো-নামানো যায়। ক্যাটল ট্রেনে সময় লাগবে মাত্র ১২ ঘণ্টা। নির্ধারিত সময়ে ট্রেনগুলো ঢাকায় পৌঁছবে।
যানজটের কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না। পশুভর্তি ট্রেনটি রাতে চলাচল করবে, ফলে তীব্র গরমে পশুগুলো অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কা নেই বললেই চলে। পশুর সঙ্গে পরিচর্যাকারী একই ওয়াগনে ভ্রমণ করতে পারবেন,
সেই ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। পশু পরিবহনে কাভার্ড ওয়াগনগুলোতে বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা থাকবে। যেখানে রোদ-বৃষ্টি প্রবেশের সুযোগ নেই। ফলে পশুগুলো অসুস্থ হওয়ার কোনো ভয় নেই।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিন বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ স্টেশন থেকে ক্যাটল ট্রেনটি আগামী বুধবার (৬ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৪টায় ছেড়ে কাঁকনহাট, রাজশাহী স্টেশন হয়ে চাটমোহর, উল্লাপাড়া, বঙ্গবন্ধু সেতু (পশ্চিম) জয়দেবপুর, টঙ্গী, তেজগাঁও হয়ে ঢাকা পৌঁছবে ভোর ৫টায়।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকায় প্রতি ওয়াগনের (বগি) পেছনে খরচ পড়বে ১১ হাজার ৮৯০ টাকা। সে ক্ষেত্রে গরুপ্রতি খরচ হবে ৫৯১ টাকা ৪০ পয়সা। ফলে প্রতি ওয়াগনে ২০টি করে গরু বহন করা যাবে। ট্রেনে কয়েক শতাধিক পশু পরিবহন করা যাবে। কৃষকদের চাহিদা থাকলে ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হবে।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেন বলেন, ইতিমধ্যে ওয়াগনগুলো গোছানোর কাজ চলছে।
ডিআরএম শাহীদুল ইসলাম বলেন, এবারের কোরবানির ঈদ সামনে রেখে গবাদি পশু পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল থেকে পশু খামারিদের চাহিদার ভিত্তিতে ক্যাটল ট্রেন ঢাকা অভিমুখে পরিবহন করা মূল উদ্দেশ্য।
ঈদ মৌসুমে ওয়াগনে গরু পরিবহন করলে সময় ও খরচ দুটোই কমবে। এতে এ অঞ্চলের সব প্রান্তিক পশু খামারিরা লাভবান হবেন।
ডিআরএম শাহীদুল ইসলাম আরো বলেন, স্বল্প খরচে কম সময়ে প্রান্তিক পশু খামারিদের পশু ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে দিতে খুব স্বল্পমূল্যে পশু পরিবহনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

Comments are closed.