পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে বাংলাদেশ, সুপার এইটের সমীকরণ কী?

0 ৩৫

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে উড়ন্ত শুরু করেছে বাংলাদেশ। গ্রুপপর্বে এখনও তিন ম্যাচ বাকি নাজমুল শান্তদের। প্রথম ম্যাচ জিতে পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে উঠে এসেছে লাল-সবুজের দল। সুপার এইট নিশ্চিতের সমীকরণ কি সহজ না কঠিন, জিততে হবে কয় ম্যাচ? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

‘ডি’ গ্রুপে একমাত্র দল হিসেবে প্রথম দুই ম্যাচের দুটোতেই জয় পেয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। আর দুই ম্যাচের দুটিতে হেরে তলানীতে অবস্থান শ্রীলঙ্কার। এমন পরিস্থিতিতে শেষ আটে যাওয়ার মূল লড়াইটা হবে বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে। তেমন কোনো অঘটন না ঘটলে এই দুই দলের মধ্যে যেকোনো একটি দলই খেলবে শেষ আটে।

এবার চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক সমীকরণে। প্রথম ম্যাচ জেতায় বাকি তিন ম্যাচের দুটিতে জিততে পারলে কোনো সমীকরণ ছাড়াই পরের রাউন্ডে যাবে বাংলাদেশ। বেশ শক্তিশালী প্রতিপক্ষ হওয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের জয় পাওয়া বেশ কঠিন। সেই হিসেবে বাকি দুই প্রতিপক্ষ নেপাল ও নেদারল্যান্ডস ম্যাচে জয় পেতে মরিয়া চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যরা।

প্রথম ম্যাচ জিতলেও দ্বিতীয় ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জিততে পারেনি নেদারল্যান্ডস। তাদের নেট রানরেট ০.০২৪। শীর্ষে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকার রানরেট অনেকটাই বেশি ০.৭৮৯। দুইয়ে থাকা বাংলাদেশের ০.৩৭৯। যথাক্রমে চার-পাঁচে থাকা নেপাল ও শ্রীলঙ্কার রানরেট যথাক্রমে -০.৫৩৯ এবং -০.৭৭৭।

এমন অবস্থায় নিজেদের পরের ম্যাচে বাংলাদেশ যদি দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বড় ব্যবধানে হারে, তাহলে তালিকার তিনে নেমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে দুইয়ে উঠে আসবে নেদারল্যান্ডস। যার ফলে পরের দুই ম্যাচের একটিতে জিতলেই শান্তদের পড়তে হবে সমীকরণের মারপ্যাঁচে। নেদারল্যান্ডসের ক্ষেত্রেও ব্যাপারটা একই।

নেদারল্যান্ডস দুই ম্যাচ খেলে ফেলায় বাকি দুই ম্যাচের দুটিতে জিতলে সরাসরি নিশ্চিত করবে শেষ আট। আর একটি জিতলে পড়তে হবে মারপ্যাঁচে। এর মধ্যে একটি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। যাদেরকে প্রস্তুতি ম্যাচে হারিয়েছিল ডাচরা। যদি বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডসের পয়েন্ট সমান হয় তখন দেখা হবে দুদলের নেট রানরেট। যে দল নেট রানরেটে এগিয়ে থাকবে তারাই যাবে শেষ আটে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.