পেঁয়াজের মজুদ পর্যাপ্ত, দাম বাড়ালে কঠোর ব্যবস্থা : বাণিজ্যমন্ত্রী

2
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। ফাইল ছবি

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ মজুদ আছে। সরবরাহও স্বাভাবিক রয়েছে। কারো আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। অনৈতিকভাবে কেউ দাম বাড়ালে বা বাড়ানোর চেষ্টা করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

টিপু মুনশি আজ সোমবার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মজুদ, সরবরাহ, আমদানি, মূল্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক ও স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে আয়োজিত সভা শেষে ভার্চুয়ালি প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, দেশীয় প্রায় পাঁচ লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজ মজুদ রয়েছে। ভারত ও মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) ৩০ টাকা কেজি দরে ট্রাক সেলের মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রি অব্যাহত রেখেছে। আগামী এক মাসের মধ্যে গ্রীষ্মকালীন নতুন পেঁয়াজ বাজারে আসবে।

টিপু মুনশি বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বাজার অভিযান জোরদার করেছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও প্রশাসন মাঠপর্যায়ে বাজার তদারকি বৃদ্ধি করেছে। ব্যবসায়ীদের আন্তরিকতা ও সততার সঙ্গে ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে। পেঁয়াজের সরবরাহ, মজুদ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সরকার সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। পেঁয়াজ নিয়ে কোনো ধরনের কারসাজি করা হলে বা কৃত্রিম উপায়ে সংকট সৃষ্টি করে মূল্য বৃদ্ধির চেষ্টা করা হলে সরকার আইন মোতাবেক কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পেঁয়াজের আমদানি সহজ ও দ্রুত করার জন্য ইতোমধ্যে বিদ্যমান পাঁচভাগ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার এবং বন্দরে দ্রুত পেঁয়াজ খালাসের বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) অনুরোধ জানানো হয়েছে। পেঁয়াজ আমদানির অনুমতিপত্র দ্রুত প্রদানের জন্য কৃষি বিভাগকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। টিসিবির মাধ্যমে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে, সাশ্রয়ী মূল্যে তা বিক্রি অব্যাহত থাকবে।

বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন মো. মফিজুল ইসলাম, টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আরিফুল হাসান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) মো. হাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব (আইআইটি) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান, বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সদস্য শাহ মো. আবু রায়হান আলবেরুনী, এনবিআরের সদস্য সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া, বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীর, কৃষি মন্ত্রণারয়ের যুগ্ম সচিব ফয়েজ আহম্মদ, গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই, এনএসআই এবং এসবির প্রতিনিধি, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রতিনিধিগণ, কনজিউমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সহসভাপতি এস এম নাজির হোসেন, এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন, মৌলভী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. গোলাম মওলাসহ সংশ্লিষ্ট আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরা।

x