প্রতিবছর ১৫ আগস্ট বাঙ্গালী জাতির শোকের মাস

0 29

স্টাফ রিপোর্টার: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর সমগ্র জীবনে একটাই ব্রত ছিল বাংলা ও বাঙ্গালীর মুক্তির জন্য নিজেকে উৎসর্গ করা। তাই এ থেকে জনগণের মুক্তির জন্য তিনি বেছে নিয়েছিলেন আন্দোলন সংগ্রামের পথ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

প্রতিমন্ত্রী আজ বাঘা ও চারঘাট উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকীতে পৃথক আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন।

এর আগে বাঘা ও চারঘাট উপজেলায় ১৫ আগস্ট উপলক্ষে পৃথক পৃথক শোক র‌্যালি বের করা হয়। পৃথক র‌্যালি উপজেলা চত্বর থেকে বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর জীবনের মূল্যবান সময়টুকু কাটিয়েছেন পাকিস্তানের কারাগারে, ফাঁসির মে গিয়ে মৃতুকে আলিঙ্গন করেছেন। যে নেতা সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও আদর্শ সামনে নিয়ে মহান ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার বীজ রোপণ করেন, সর্বোপরি যে নেতার জন্ম না হলে দেশ স্বাধীন হতো না, নির্মম পরিতাপের বিষয় সেই নেতাকে’৭৫-এর ১৫ আগষ্ট তাঁরই প্রতিষ্ঠিত স্বাধীন বাংলাদেশে বুলেটের আঘাতে সপরিবারে হত্যা করা হয়। তিনি বলেন, যে নেতার হৃদয়জুড়ে ছিল বাংলাদেশের গরীব-দুঃখী মানুষ, যাদের মুক্তির জন্য তিনি জীবনের প্রায় ১৩টি বছর পাকিস্তানের কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে কাটিয়েছেন ।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে খুনিচক্র মনে করেছিল বঙ্গবন্ধুর আদর্শ তথা আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করে দেবে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে দীর্ঘ নির্বাসন শেষে ’৮১-এর ১৭ মে বাংলাদেশের মাটি স্পর্শ করেন। আমরা সেদিন আওয়ামী লীগের রক্তে ভেজা পতাকা তাঁর হাতে তুলেদিয়েছিলাম। বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে। তিনি বলেন, অর্থনৈতিক মুক্তি বঙ্গবন্ধু সমাপ্ত করতে পারেননি, শেষ হাসিনা দায়িত্বভার গ্রহণ করে নিষ্ঠা ও সততার সাথে পরিশ্রম করে বাংলাদেশকে তিনি আজ মর্যাদাশীল অবস্থানে আসীন করেছেন। সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় স্বপ্ন ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামাত ব্যর্থ হয়েছে। তারা রাজনীতির মাঠ ছেড়ে দেশে বিদেশে চক্রান্ত শুরু করেছে। তাদের চক্তান্ত থেকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।বিকেলে বাঘা হাই স্কুল মাঠে জাতীয় শোক দিবসের বিশেষ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

চারঘাট উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নাজমুল হক এর সভাপতিত্বে পৃথক অনুষ্ঠানে, বারিন্দ মেডিকেলের ডা, মো. রফিকুল আলম, বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীন রেজা, বাঘা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম, চারঘাট পৌরসভা চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক একরামুল হক, কৃষি কর্মকর্তা বজ হরীদাসসহ সরকারি কর্মকর্তা ও নেতৃবৃন্দ বক্তৃতা করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.