প্রতিযোগী দেশগুলির মধ্যে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টা শ্রীলঙ্কার

69

শ্রীলঙ্কার নৌবাহিনী জাপানের সাথে যৌথ মহড়া পরিচালনা করেছে। গত অক্টোবরে কলম্বো বন্দরে আসা দুটি জাপানি নৌ জাহাজের সঙ্গে আগে প্রাপ্ত একটি যুদ্ধজাহাজ ছাড়াও ভবিষ্যতে একটি বিমানবাহী রণতরীতে রূপান্তরিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এটি শ্রীলঙ্কায় পা রাখার জন্য আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার প্রতি নির্দেশ করে। বিশেষ করে যদি কলম্বো বন্দর শহর ২০২৫ সালের পরে তার কার্যকারিতা শুরু করে। তখন এটি একটি আঞ্চলিক আর্থিক কেন্দ্র হয়ে উঠবে যা কারণ চীন তাদের শক্তিশালী করতে চায় যা ভারত, আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলো হুমকি হিসেবে নিতে পারে। সূত্র: A24 News Agency

শ্রীলঙ্কার মতো একটি সার্বভৌম রাষ্ট্রে আর্থিক সক্ষমতা এবং রাজনৈতিক ক্ষমতা থাকাটা ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের পোর্ট সিটিতে তাদের অর্থ বিনিয়োগ করতে আসতে বাধ্য করে এবং এটি ভারতের কিছু পুঁজি পোর্ট সিটিতে প্রবাহিত করতে পারে এবং ভারতীয় ক্যাসিও উদ্যোগগুলি শ্রীলঙ্কায় আসতে পারে।

এ প্রসঙ্গে শ্রীলঙ্কার বিশিষ্ট সমালোচক, রাজনৈতিক সমালোচক ও সাথহন্দা সিংহল সাপ্তাহিকের প্রধান সম্পাদক দীপ্তি কুমারা গুনারথনে জানান, ”যি কলম্বো বন্দর শহরটি ২০২৫ এর পরে তার কার্যকারিতা শুরু করে তবে এটি আঞ্চলিক আর্থিক কেন্দ্র হয়ে উঠবে। এটি ভারত, আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলিকে হুমকির মুখে ফেলতে পারে কারণ চীন অন্য একটি সার্বভৌম রাষ্ট্রে তার আর্থিক সক্ষমতা এবং রাজনৈতিক শক্তিকে শক্তিশালী করছে৷

যদি আরও বেশি ভারতীয় বিনিয়োগকারী পোর্ট সিটিতে তাদের অর্থ বিনিয়োগ করতে চায়। এটি পোর্ট সিটিতে ভারতের মূলধনের কিছু প্রবাহ চালিত করতে পারে এবং ভারতীয় ক্যাসিও উদ্যোগগুলিকে শ্রীলঙ্কায় আনতে পারে। কুমারা গুনারথনে মনে করেন, পাকিস্তান, ভারত ও চীনের সম্পৃক্ততার কারণে এবং সাম্প্রতিক কিছু সামরিক সংযোগের কারণে শ্রীলঙ্কা বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক শক্তির রাজনীতিতে একটি বিশিষ্ট স্থান পাবে৷

যা আসন্ন ডলার সংকটে চীন, ভারত এবং আমেরিকান আঞ্চলিক শক্তির রাজনীতির ফলস্বরূপ। এদিকে, প্রাক্তন মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য ডঃ রাজিথা সেনারত্নের মতে এটি আসলে অন্য পক্ষকে খুশি করার চেষ্টা। তার মতে, ”জাপান এবং শ্রীলঙ্কার যৌথ নৌ মহড়া, প্রকৃতপক্ষে জাপানিরা যদি জড়িত থাকে তবে তারা সর্বদা আমেরিকা এবং ভারতের সাে বোঝাপড়া করে এখানে আসে, কারণ তারা একই অক্ষে রয়েছে। চীন আলাদা, তাই সরকার উভয়পক্ষের সাথেই ভারসাম্য বজায় রেখে খেলছে। সরকারের কোনো পররাষ্ট্রনীতি নেই এবং সরকারের কোনো নীতিই নেই।

তাই তারা যখন চীনের সঙ্গে যায় এবং যদি মনে করে যে তাতে অন্য লগুলো খুশি নয়, তখন তারা ওই লগুলোর সাথেও এমন কিছু করে। তাই সে কারণেই হয়তো সরকার জাপানের সঙ্গে নৌ মহড়া করছে।” তবে ইতিমধ্যে, শ্রীলঙ্কা সরকার কাউকে না রাগিয়ে দিতে জাপান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত এবং চীনসহ অন্যান্য প্রতিযোগী বলয়ের মধ্যে তার সম্পর্কের ভারসাম্য বজায় রাখার চেষ্টা চালাচ্ছে।

x