ফিলিস্তিনি ঐতিহ্য সংরক্ষণে ফিলিস্তিনি নারীদের হস্তশিল্প প্রদর্শনী

৯৮

ফিলিস্তিনি নারীদের আর্থিকভাবে সমর্থন করার প্রয়াসে এবং ফিলিস্তিনের সমৃদ্ধ ঐতিহ্য সংরক্ষণের জন্য, গাজায় “নারী উদ্যোক্তা” নামের একটি শিল্প প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। যেখানে ঐতিহ্যবাহী শিল্পকর্ম, হস্তশিল্প, ভাস্কর্য এবং সূক্ষশিল্প চিত্র প্রদর্শন করা হচ্ছে। প্রায় ৪৫ জন মহিলাকে অংশগ্রহণ করার এবং তাদের প্রতিভা প্রদর্শনের সুযোগ দেওয়া হয়েছে এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে। এমব্রয়ডারি বা সূচিকর্মে পারদর্শী ও অগ্রগামী একজন হলেন ডালিয়া আবু ডেলো। তাঁর মতে এটি তাদের জন্য বৃহৎ পরিসরে কাজ করার একটি সুযোগ, ”এই প্রকল্পটি ৪৫ জন মহিলাকে তাদের শিল্পকর্ম প্রদর্শনের সুযোগ দিয়েছে। সূত্র: A24 News Agency

এটির লক্ষ্য মহিলাদের আর্থিকভাবে সাহায্য করা এবং তাদের প্রতিভা প্রদর্শন করা। তার উপর, প্রকল্পে ৪টি বিভাগ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে- পেইন্টিং, ভাস্কর্য, হস্তনির্মিত গয়না এবং সূচিকর্ম। আমি সূচিকর্মের শিল্প আয়ত্ত করেছি এবং আমি বিশ্বাস করি যে ঐতিহ্যবাহী ফিলিস্তিনি সূচিকর্মের মাধ্যমে, আমরা আমাদের প্রতিভা প্রদর্শন করতে সক্ষম হয়েছি এবং চমৎকার রঙের সাথে বিশিষ্ট শিল্পকলা তৈরি করতে পেরেছি যাতে পুরো বিশ্ব দেখতে পারে।

এই অনন্য শিল্প কর্মগুলো ফিলিস্তিনের জন্য আমার উপহার। আমি বিশ্বাস করি তাদের সুতোগুলি এক পরিপূর্ণ জীবন কারণ তারা ফিলিস্তিনি পরিচয় এবং ঐতিহ্যকে প্রতিফলিত করে। প্রতিটি একক সুতা আমাদের আশার প্রতিনিধিত্ব করে যখন সুঁইটি আশা খোঁজার সংগ্রামের প্রতীক।”

এদিকে, গাজা পৌরসভার সাংস্কৃতিক ও কমিউনিটি সেন্টারের মহাপরিচালক ইমাদ সিয়ামের মতে, এটি প্রকৃতপক্ষে একটি অনন্য প্রদর্শনী। এটি একটি সর্ব-মহিলা প্রদর্শনী। উদ্দেশ্য হল নারীদের তাদের শিল্পকর্ম প্রদর্শনের মাধ্যমে আর্থিকভাবে সমর্থন করা যার মধ্যে রয়েছে সূচিকর্ম, ভাস্কর্য এবং চারুকলা। আমরা আশা করি গাজার উপর অবরোধের অবসান ঘটুক, যাতে আমরা এই ভূমিতে আমাদের অধিকার প্রদর্শনের জন্য ফিলিস্তিনি ঐতিহ্যের গভীর শিকড় এবং ইতিহাসের প্রচার করতে পারি।

তিনি এই ক্ষেত্রে ফিলিস্তিনি নারীদের দেশের ঐতিহ্যকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরার জন্য আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণের সুবিধার্থে অবাধে ভ্রমণের আশা প্রকাশ করেন।

Comments are closed.