বগুড়ার শেরপুরে শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘে আগুন ॥ থানায় অভিযোগ

0 536

শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরের চকমুকুন্দ গ্রামে শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘের নামে জায়গা দখল ও সদস্যদের টাকা আত্মসাতের পায়তারায় আগুন লাগিয়ে দেওয়ার ঘটনায় গত রোববার রাতে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার শাহ-বন্দেগী ইউনিয়নের চকমুকুন্দ গ্রামের আলিমুদ্দিনের ছেলে ইউসুফ আলীর কাছ থেকে গত ২০১৬ সালে ৩ মাসের কথা বলে শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘ করার জন্য জমি নেয় একই এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে আবুল কালাম আজাদ লিটুু, হাকিম, আমিনুল, রনিসহ কয়েকজন। পরে তারা শেখ রাসেল স্মৃতি সংঘের নাম ভাঙ্গিয়ে সমাজ সেবামুলক কাজের পরিবর্তে ৭৩ জন সদস্য ভর্তির মাধ্যমে ঋনদান কর্মসুচি ও সরকারী সুযোগ সুবিধা নেয়। ভর্তিকৃত সদস্যদেরকে মাসিক ৫শ টাকা সঞ্চয় জমা এবং ঋনের অনুকুলে ৩% হারে সুদ নেয়ার মাধ্যমে প্রায় ৪ লাখ ৭৮ হাজার টাকা জমায়। এদিকে ৩মাসের জন্য চুক্তিভিত্তিক নেয়া জমি বেদখল দিতে এবং সদস্যদের টাকা আত্মসাৎ করার পায়তারা চালায় সংগঠনের নেতারা। ফলে ইউসুফ আলীসহ ১৬জন সংঘের সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে হিসাব-নিকাশ চেয়ে ব্যর্থ হয়ে টাকা না পাওয়ায় তারা পদত্যাগ করে। এদিকে ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে এবং সংঘের অনুকুলে জমি বেদখল দিতে উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপাতে গত শনিবার রাতে কে বা কাহারা আগুন দেয়। এরফলে সংঘের ভেতরে রাখা আলমিরা, টিভি, ফ্যান ও টেবিল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও প্রধানমন্ত্রী’র ছবি সম্বলিত ব্যানারসহ আসবাবপত্র পুড়ে যায়।
তবে সংগঠনের ঘর তালাবদ্ধ ও বেড়াগুলো অক্ষত থাকলেও ভেতরে আগুন জ্বলা বিষয়টি ভাবিয়ে তোলার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব পরিবারকে সংগঠনের নামে সুদের ব্যবসা চালানো হয় জানিয়েছেন স্থানীয় সচেতনমহল।
এদিকে ওই সংগঠনের উপদেষ্টা আবুল কালাম আজাদ লিটু জানান, সংগঠন তৈরী করে সদস্য সংগ্রহ ও তাদের মাঝেই সঞ্চয়ের অনুকুলে ঋন প্রদান করা হতো। তবে এটা বৈধ না অবৈধ জানিনা।
এ ঘটনায় সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে শেরপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ে করে।
এ প্রসঙ্গে থানার পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) বুলবুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x