‘বিএনপি আসুক আর না আসুক, সংবিধান অনুযায়ী যথাসময় নির্বাচন হবে’

১৮২
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে কাকরাইলের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন। ছবি : ফোকাস বাংলা

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি আসুক আর না আসুক নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী যথাসময় হবে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে কাকরাইলের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে স্বেচ্ছাসেবক লীগ আয়োজিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনের আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মির্জা ফখরুল এবং বিএনপির নেতাদের স্মরণ করিয়ে দিতে চাই। বাংলাদেশে আমরা যখন নিরপেক্ষ সরকারের জন্য আন্দোলন করছিলাম; তখন খালেদা জিয়া বলছিলেন, পাগল আর শিশু ছাড়া আর কেউ নিরপেক্ষ নয়। তাহলে আজ ফখরুল সাহেব নিরপেক্ষ সরকারের জন্য পাগল আর শিশু মিলিয়ে একটা প্রস্তাব পাঠান। কারণ, পাগল আর শিশু ছাড়া আর কেউ তো নিরপেক্ষ নয়, এটা আপনাদের নেত্রী বলেছেন। তাহলে, পাগল আর শিশু দিয়ে একটা নির্বাচন কমিশন গঠন করুন। এ প্রস্তাব আপনারা পাঠান। রাষ্ট্রপতিকে মানবেন না, সার্চ কমিটি মানবেন না। গতবার সার্চ কমিটি করেছেন রাষ্ট্রপতি।’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘আপনাদের দাবি থাকতে পারে, কিন্তু সবচেয়ে বড় দাবি যেটা—নিরপেক্ষ সরকার আপনারা চান। সে নিরপেক্ষ সরকারে প্রস্তাবটা পাঠান পাগল আর শিশু দিয়ে। রাষ্ট্রপতি তা করবেন কি না, সেটা উনার বিষয়। এটা তো আপনাদের নেত্রীরই কথা।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আগামি নির্বাচনে আপনারা আসুন এটা আমরা চাই। কিন্তু, এখন থেকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন, প্রয়োজনে নির্বাচন করবেন না। নির্বাচন বয়কট করবেন কেন? হেরে যাওয়ার ভয়ে আগেই কি হেরে যাচ্ছেন? নির্বাচন এখনও দুবছরের বেশি সময় বাকি, আজকে আন্দোলনের ডাক দিচ্ছেন। আপনাদের আন্দোলনে এ দেশের মানুষ সাড়া দেবে কি? মানুষ আপনাদের সঙ্গে আছে? তেরো বছর তো আন্দোলন ডাক দিলেন, দেখতে দেখতে তেরো বছরে মরা গাঙে জোয়ার আসেনি। আপনাদের আন্দোলনের মরা গাঙে এ পর্যন্ত জোয়ার আসেনি, ভবিষ্যতে আসবে কি না আমরা জানি না। এ দেশের মানুষ জানে না। কারণ, মানুষ আপনাদের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, ‘নির্বাচন ঠেকাতে আসলে সহ্য করা হবে না। নির্বাচনে আসুন, আপনাদের স্বাগতম। কিন্তু, নির্বাচন করতে দেবেন না—এই দম্ভোক্তির জবাব বাংলার জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা দেব। নির্বাচন না করলে আপনাদের ব্যপার। কিন্তু নির্বাচন ঠেকাতে যাবেন, সেটা কিন্তু বাংলার জনগণ সহ্য করবে না। বিএনপি আসবে না, তা বলে নদীর স্রোত বন্ধ থাকবে না, তাই বলে সময়ের গতি বন্ধ থাকবে না। সময় আর স্রোত যেমন বন্ধ থাকে না নির্বাচনও বন্ধ থাকবে না। বিএনপি আসুক আর না আসুক তার ওপর নির্বাচন বন্ধ থাকবে না। নির্বাচন যথাসময় সংবিধান অনুযায়ী হবে।’

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মলরঞ্জন গুহের সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক এ কে এম আফজালুর রহমান বাবু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, সাধারণ সম্পাদক তারেক সাঈদ বক্তব্য রাখেন।

Comments are closed.