বিতর্কিত ‘১’ রানেই বদলে গেলো বিশ্বকাপ ইতিহাস!

0 184

স্পোর্টস প্রতিবেদক: ফাইনালে শেষ ওভারে জেতার জন্য ইংল্যান্ডের দরকার ছিল ১৫ রান। ১৪ রান নিয়ে ম্যাচ টাই করল ইংল্যান্ড। কিন্তু আদৌ কি ম্যাচ যাওয়ার কথা ছিল সুপার ওভারে? আবার কি ভুল আম্পায়ারিং এর শিকার হল ক্রিকেট?

কী বলছে আইসিসি-র নিয়ম?

শেষ ওভারে বল করতে আসেন ট্রেন্ট বোল্ট। প্রথম দুই বলে রান দেননি। কিন্তু তৃতীয় বল মাঠের বাইরে পাঠিয়ে দেন বেন স্টোকস। ডিপ মিড উইকেটের ওপর দিয়ে বল চলে যায় বাউন্ডারির বাইরে। এরপরের বলেই ঘটে সেই বিতর্কিত ঘটনা।

বোল্টের চতুর্থ বল ফুলটস হয়ে যায়। কিন্তু স্টোকস এ বার মিড উইকেটে মেরে দু’রানের জন্য ছোটেন। গাপটিল বল ছোড়েন উইকেট লক্ষ্য করে। বল উইকেটে নয়, লাগে ডাইভ দেওয়া বেন স্টোকসের ব্যাটে। শুধু তাই নয় সেই বল চলে যায় বাউন্ডারির বাইরে। ধন্দে পড়েন আম্পায়াররা। কত রান হবে? পাঁচ নাকি ছয়? কিছু সময় পর ছয়ের সিদ্ধান্ত জানান কুমার ধর্মসেনা।

দুই রান ছুটে নিয়েছেন স্টোকস-রশিদ, আর চার রান ওভার থ্রোয়ে। সহজ হিসাব। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে আইসিসি-র নিয়মে।

নিয়ম বলছে, ওভার থ্রোয়ে যদি চার হয়, তবে তার আগে সেই রানই যোগ হবে, যে রান ব্যাটসম্যানরা ফিল্ডার বল ছোড়ার আগে শেষ করেছেন। অর্থাৎ গাপটিল বল ছোড়ার আগে যে রানটি স্টোকস ও রশিদ নিয়েছেন, সেই রানই যোগ হবে।

ম্যাচে দ্বিতীয় রান তারা নেওয়া শুরু করলেও ক্রস করেননি। অর্থাৎ নিয়ম অনুযায়ী পাঁচ রান দেওয়া উচিত ছিল। কিন্তু দেওয়া হয় ছয় রান। এই এক রানই ম্যাচের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। টাই হয়ে যায় ম্যাচ। নিয়ম মেনে পাঁচ রান দিলে হয়তো বদলে যেত ম্যাচের ফল।

এ প্রসঙ্গে সাবেক অস্ট্রেলিয়ান আম্পায়ার সাইমন টাফেল বলেন, ‘এটা পরিষ্কার ভুল…ভুল সিদ্ধান্ত। তাদেরকে (ইংল্যান্ড) পাঁচ রান দেওয়া উচিত ছিল, ছয় নয়।’

পাঁচবারের বর্ষসেরা আম্পায়ারের পুরস্কার জেতা টাফেল আরও জানান, নিয়ম অনুযায়ী ইংল্যান্ড যেহেতু দৌড়ে দ্বিতীয় রান নিতে পারেনি সেক্ষেত্রে স্টোকস নয়, পঞ্চম বলটি খেলা উচিত ছিল আদিল রশিদের। আর শেষ দুই বলে ৩ নয়, ৪ রান দরকার হতো তাদের। সিদ্ধান্তটা ম্যাচকে প্রভাবিত করেছে বলেই মনে করেন টাফেল।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x