বিদেশী অপরিশোধিত কোম্পানির প্রকল্পে নিজ জমি থেকে উচ্ছেদ শত শত পরিবার

২২২

একটি বিদেশী কোম্পানির ক্রুড হস্তান্তর প্রকল্পের জন্য অনুমানের চেয়েও আরও বেশি জমি লাগছে বলে ঢাকার মহেশখালী উপ-জেলায় বসবাসকারী ৩৫০ টিরও বেশি পরিবারকে তাদের বাড়িঘর ও জমি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে। ফলে তারা অসহনীয় জীবনযাপন করছে। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি) ও চায়না পেট্রোলিয়াম পাইপলাইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড (সিপিপিইসিএল) একটি সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং (এসপিএম) নির্মাণের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করে। যার প্রকৃত কাজ মে ২০১৬ সালে শুরু হয়েছিল।সূত্র: A24 News Agency

মহেশখালীর দুর্দশাগ্রস্ত জনগোষ্ঠী তখন থেকেই এ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে কারণ এ প্রকল্পের অনেক ভুক্তভোগী জানিয়েছেন যে তারা কোনো উচ্ছেদের নোটিশ পাননি। জনাব শাহাবুদ্দিন, যিনি এই প্রকল্পের জন্য তার ৩০ একর জমি হারিয়েছেন তিনি জানান, “প্রজেক্ট সাইটে আমার প্রায় ৩০ একর জমি ছিল। অন্যদেরও জমি ছিল। আমার আত্মীয় এবং আমার এখানে একটি বাড়ি ছিল।

এখানে প্রায় ৩০০-৩৫০ টি পরিবার ছিল। এসব উপনিবেশে অধিকাংশ পরিবারই সাময়িকভাবে আশ্রয় নিয়েছে।মহেশখালী ও কক্সবাজারের সব বড় নেতারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে আমরা যদি এই জমিগুলো সরকারি প্রকল্পের জন্য ছেড়ে দেই, তাহলে তারা আমাদের পুনর্বাসন করবে। তা সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত আমাদের কোনো পুনর্বাসন হয়নি।“ প্রকল্পের জন্য নিজ জমি থেকে উচ্ছেদ হওয়া এক বয়স্ক ব্যক্তি বলেন, “পূর্ব দিকে আমার প্রচুর জমি ছিল। আমি বেতাল পাতা, বোরো ধান ইত্যাদি চাষ করতাম, সুন্দর ঘর বানিয়েছি।

কিন্তু এর পরিবর্তে আমি পেয়েছি মাত্র ৩০০০০০ টাকা। এরপর আমাকে আর কিছুই দেওয়া হয়নি।” নিজ জমি থেকে উচ্ছেদ হওয়া আরেক একজন মধ্যবয়সী মহিলা জানান, “আমাকে ৫০০০০ টাকা দেওয়া হয়েছিল এবং কিছুকে পুনর্বাসনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ১০০,০০০ টাকা করে দেওয়া হয়েছিল। তারা আমাদের এই কলোনীতে রেখেছে। তারা আমাদের একটি বাড়ি এবং পুনর্বাসনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। এখানে আমাদের দুটি টয়লেট আছে। যদি কেউ একটি টয়লেটের ভিতরে যায়, বাইরে কমপক্ষে ১০ জনকে অপেক্ষা করতে হয়।আমাদের দুটি নলকূপ আছে, কমপক্ষে ১৫ জন লোককে পালা করে পানি নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।”

এসব লোককে উন্নত আবাসন এবং চাষের জমির প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। উচ্ছেদের শিকার হওয়া লোকেরা রিপোর্ট করেছে যে তারা এখন নিম্ন মানের কলোনি তে বসবাস করে যেখানে পরিবারগুলি ছোট জায়গায় থাকে। এ প্রসঙ্গে পরিবেশবিদ, সাংবাদিক নেতা এবং স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষক জনাব দীপক শর্মা দিপু বলেন, “মহেশখালীতে যে চীনা কোম্পানি উন্নয়নের নামে কাজ করছে, তারা সুন্দর সবুজ পাহাড় কেটে ফেলছে।

এটি জীবন্ত জিনিসগুলিকে ধ্বংস করেছে। মহেশখালীকে নিয়ে আমরা গর্বিত কারণ এটাই বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ। সুযোগ পেলেই আমরা মহেশখালীর কথা বলি। মহেশখালীর সৌন্দর্য নষ্ট করে এমন কোনো উন্নয়ন প্রকল্প আমরা গ্রহণ করব না। তারা প্রায় ৩৫০ পরিবারকে প্রকল্প স্থান থেকে উচ্ছেদ করেছে। আমরা উন্নয়নমূলক প্রকল্পগুলির জন্য আরেকজনের নিজস্ব জমি থেকে তাদের উচ্ছেদের অনুমতি দিতে পারি না। কর্তৃপক্ষ কৃষকদের এমন জমি দিয়ে ক্ষতিপূরণ দিয়েছে যেগুলিতে চাষাবাদ করা যায় না। এ পরিস্থিতিতে তারা কীভাবে তাদের পরিবারের ভরণপোষণ করবে তা নিয়ে অস্থিরতার মধ্যে আছে।”

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুনঃ https://youtu.be/p55Jqs6mqUM

Comments are closed.