বিশ্বের বিস্ময় পদ্মা সেতু নির্মাণ করে দেখালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- খায়রুজ্জামান লিটন

87

স্টাফ রিপোর্টার : আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়,২৩-বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, ঢাকা প্রান্তে আওয়ামী লীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন।আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। সভায় তিনি বলেন, পদ্মা সেতু বিশ্বের মধ্যে অন্যতম একটি বিস্ময়। পদ্মা সেতু নির্মাণ করে দেখালেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতু আমাদের নিজেদের সম্মান ও গৌরবের। যেটি নষ্ট করতে চেয়েছিল পশ্চিমা বিশ্ব। সেটিতে নৎসাৎ করে দিয়ে নেত্রী আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার সুযোগ করে দিয়েছেন। এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ১৮৮৫ সালে ভারতের কংগ্রেস প্রতিষ্ঠত হয়েছিলো। ১৯০৬ সালে পাকিস্তান মুসলিম লীগ সৃষ্টি হলো। এরপর উপমহাদেশের প্রাচীন দল আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের চেয়ে দুইটি দলের অবস্থা খারাপ। ভারতের কংগ্রেস আজকে যেন মনে হয়, দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় পথ হারিয়েছে। মুসলীম লীগ তার নানা কর্মকান্ডের কারণে বাংলাদেশ থেকে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। পাকিস্তান যেটি আছে, আজ তা খন্ড বিখন্ড। একমাত্র জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সক্রিয় ও সরাসরি তত্ত্বাবধায়নে গঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এখন প্রাচীনতম দল হয়ে বাংলাদেশে টিকে আছে। শত সহ¯্র ষড়যন্ত্র ভেদ করে আজ পর্যন্ত দেশবাসীকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, দল নানা কারণে সৃষ্টি হয়। আমরা জানি কিছু দল হয় দেশের কোন গোষ্ঠীর স্বার্থে আবার কোন দল হয় কোন আঞ্চলিক স্বার্থে, কিছু দল হয় কোন মন শক্তিকে তুষ্ট করার জন্য। কিন্তু আওয়ামী লীগ এক অদ্ভুত সৃষ্টি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের। আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর কারণে বাংলাদেশের মানুষের চিন্তা চেতনা ধ্যান ধারনা অন্তরে ধারণ করতে পারার কারণে দলটি ধীরে ধীরে ছোট গাছ থেকে বিশাল বড় বটগাছে পরিণত হয়েছে। আজকে বাংলাদেশের এমন কোন গ্রাম নেই, যেখানে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী নেই। বর্তমানে কোটির উপরে সক্রিয় সমর্থক রয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের। এই আওয়ামী লীগ দীর্ঘ চড়াই উৎরায় সংগ্রামে ইতিহাসের প্রতিটি ভাজে ভাজে রয়েছে।

রাসিক মেয়র লিটন বলেন, বঙ্গবন্ধু নির্দেশে আওয়ামী লীগের পরিচালনার কারণে মহান মুক্তির সংগ্রামে মাত্র নয় মাসের মধ্যে সমাপ্তি হলো। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু তার তিন বছর সাত মাসে যা করেছেন, সেটাও একটা ইতিহাস। ১৯৭৫ সালের সেই দুঃখজনক কথা আমরা সবাই জানি। এ দেশের মানুষ বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিলো। হত্যাকারীদের শাস্তি আমাদের নেত্রী নিয়ম মাফিক দিয়েছেন। একজন মানুষ পিতা মাতা হারালে যেভাবে বিচারপ্রার্থী হন, তিনি সেইভাবে বিচারপ্রার্থী হয়েছেন। ক্ষমতা নিয়ে তিনি ট্রাইব্যুনাল বা কোর্ট মার্শাল দিয়ে বিচার করেননি। এটা প্রধানমন্ত্রীর মহানুভবতার প্রমাণ।

রাসিক মেয়র আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা সম্ভব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা আরো অনেক দূর এগিয়ে যেতে চাই।

x