বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৮ লাখ ছাড়াল

0 31

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চীনের উহান থেকে গত ডিসেম্বরে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব। এরপর চার মাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৮ লাখ ৩০ হাজার ২৮৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ৬১৬ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ৮ লাখ ১ হাজার ৯১৭ জন।

বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৯৭ হাজার ২৬৩ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ১৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বর্তমানে বিশ্বে ১৮ লাখ ৩১ হাজার ১০৯ জন শনাক্ত রোগী রয়েছে। তাদের মধ্যে ১৭ লাখ ৭২ হাজার ৫৮৫ জন চিকিৎসাধীন, যাদের অবস্থা স্থিতিশীল। আর ৫৮ হাজার ৫২৪ জনের অবস্থা গুরুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিউতে রয়েছে।

ভাইরাসটি চীন থেকে ছড়ালেও বর্তমানে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৯ লাখ ২৫ হাজার ৩৮, মারা গেছে ৫২ হাজার ১৮৫ জন। এখন পর্যন্ত করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু এবং আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে।

এছাড়া স্পেনে আক্রান্ত ২ লাখ ১৯ হাজার ৭৬৪, মারা গেছে ২২ হাজার ৫২৪ জন। ইতালিতে আক্রান্ত ১ লাখ ৯২ হাজার ৯৯৪, মারা গেছে ২৫ হাজার ৯৬৯ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত ১ লাখ ৫৯ হাজার ৮২৮, মারা গেছে ২২ হাজার ২৪৫ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত ১ লাখ ৫৪ হাজার ৯৯৯, মারা গেছে ৫ হাজার ৭৬০ জন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত ১ লাখ ৪৩ হাজার ৪৬৪, মারা গেছে ১৯ হাজার ৫০৬ জন। তুরস্কে আক্রান্ত ১ লাখ ৪ হাজার ৯১২, মারা গেছে ২ হাজার ৬০০ জন। ইরানে আক্রান্ত ৮৮ হাজার ১৯৪, মারা গেছে ৫ হাজার ৫৭৪ জন। চীনে আক্রান্ত ৮২ হাজার ৮১৬, মারা গেছে ৪ হাজার ৬৩২ জন। ব্রাজিলে আক্রান্ত ৫২ হাজার ৯৯৫, মারা গেছে ৩ হাজার ৬৭০ জন। বেলজিয়ামে আক্রান্ত ৪৪ হাজার ২৯৩, মারা গেছে ৬ হাজার ৬৭৯ জন। কানাডাতে আক্রান্ত ৪৩ হাজার ৮৮৮, মারা গেছে ২ হাজার ৩০২ জন। নেদারল্যান্ডসে আক্রান্ত ৩৬ হাজার ৫৩৫, মারা গেছে ৪ হাজার ২৮৯ জন। সুইজারল্যান্ডে আক্রান্ত ২৮ হাজার ৬৭৭, মারা গেছে ১ হাজার ৫৮৯ জন। সুইডেনে আক্রান্ত ১৭ হাজার ৫৬৭, মারা গেছে ২ হাজার ১৫২ জন। মেক্সিকোতে আক্রান্ত ১২ হাজার ৮৭২, মারা গেছে ১ হাজার ২৩৯ জন। আয়ার‌ল্যান্ডে আক্রান্ত ১৮ হাজার ১৮৪, মারা গেছে ১ হাজার ১৪ জন।

ভারতে আক্রান্ত ২৪ হাজার ৪৪৭, মারা গেছে ৭৮০ জন। পাকিস্তানে আক্রান্ত ১১ হাজার ৯৪০, মারা গেছে ২৫৩ জন। বাংলাদেশে আক্রান্ত ৪ হাজার ৬৮৯, মারা গেছে ১৩১ জন।

এ রোগের কোনো উপসর্গ যেমন জ্বর, গলা ব্যথা, শুকনো কাশি, শ্বাসকষ্ট, শ্বাসকষ্টের সঙ্গে কাশি, এর কারণে স্বাদ ও গন্ধের অনুভূতিও কাজ না করতে পারে তাই এগুলো দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। জনবহুল স্থানে চলাফেরার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। বাড়িঘর পরিষ্কার রাখতে হবে। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এবং খাবার আগে সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে। খাবার ভালোভাবে সিদ্ধ করে খেতে হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.