মুসলিম নারীদের বন্ধ্যা করে দিচ্ছে চীন!

0 71

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চীনের উইঘুর গোত্রভুক্ত মুসলিম নারীদের জোরপূর্বক বন্ধ্যা করে দেয়া হচ্ছে।

স্থানীয় সময় গেল মঙ্গলবার বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক পোস্ট ও ব্রিটিশ দৈনিক দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্টসহ বেশকিছু আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে।

চীনে ধর্মীয় সংখ্যালঘু এসব মুসলিম দীর্ঘদিন ধরে জিনজিয়াংয়ে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন।

দেশটির জিনজিয়াং প্রদেশে কথিত ‘রি-এডুকেশন সেন্টার’-এ আটক ১০ লাখ উইঘুর মুসলিমের মধ্যে যেসব নারীবন্দি রয়েছেন তাদের সঙ্গে এমনটা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বন্দিত্ব থেকে মুক্ত হওয়া দুই মুসলিম নারী।

জিনজিয়াংয়ের সেসব বন্দী শিবিরে একসময় বন্দি থাকা নারীদের একজন গুলবাহার জালিলোভা। চীনা সরকারের কথিত ‘পুনঃশিক্ষা’ বন্দিশিবিরে এক বছরের বেশি সময় আটক ছিলেন তিনি।

পরে বুদ্ধি খাটিয়ে একসময় সেখান থেকে পালিয়ে যান তিনি। ফ্রেঞ্চ২৪-কে অভিযোগের সুরে গুলবাহার বলেন, ‘নিয়মিত বিরতিতে আমাদের শরীরে ইনজেকশন দেয়া হতো।’

৫৪ বছর বয়সী ওই উইঘুর নারী বলেন, ‘দরজার ছোট্ট একটি খোলা অংশে আমাদের হাত-পা বেঁধে রেখে ইনজেকশন দেয়া হতো। ইনজেকশন দেয়ার পর আমরা বুঝতে পারলাম কোনওভাবেই আমাদের আর পিরিয়ড (ঋতুস্রাব) হচ্ছে না।’

গুলবাহার আরও বলেন, ‘১০ ফুট বাই ২০ ফুট ছোট্ট একটি সেলে ৫০ জনের বেশি মানুষের সঙ্গে থাকতে দেয়া হতো। চলাফেরা তো দূরে থাক, কোনোরকম নড়াচড়া করতে পারতাম না। তখন নিজেকে একটা মাংসের খণ্ড বলে মতে হতো।’

গুলবাহারের মতো এমনই পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন ৩০ বছর বয়সী মেহেরগুল সহ আরও শত শত নারী। হেরগুল এখন মার্কিন মুলুকে নির্বাসিত জীবনযাপন করছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x