যা খেলে কাটবে দুর্বলতা স্বাস্থ্য ডেস্ক

0 212

দৈনন্দিন খাবারের প্রতি পূর্ণ মনোযোগী হওয়া খুবই জরুরি। কেননা খাদ্যাভ্যাস ও দৈহিক শক্তির মাঝে একটি নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, খাবার মেনুতে নিয়মিত দুধ, ডিম এবং মধু রাখলে এবং নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন করলে দৈহিক দুর্বলতা দূর হয়। এছাড়া দৈহিক শক্তি বাড়াতে আরও যা খাওয়া দরকার :

কলা : কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, যা শরীরের শর্করাকে শক্তিতে রূপান্তর করতে সহায়তা করে। কলাতে আরো রয়েছে ভিটামিন বি, সি, ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, ওমেগা-৬ ফ্যাটি অ্যাসিড, ফাইবার ও কার্বোহাইড্রেট। এগুলো ক্লান্তি, ডিহাইড্রেশন ও দুর্বলতার অন্যান্য উপসর্গ নাশ করে। ক্লান্তি এড়াতে রোজ দুটি মাঝারি আকারের কলা খান।

টক দই : টক দইয়ে রয়েছে উচ্চ মানের প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও অন্ত্র সুস্থ রাখে এমন প্রোবায়োটিক উপাদান। ক্লান্ত লাগলে দই খাওয়া যেতে পারে। দিনের যে কোনো সময় টক দই খাওয়া যেতে পারে। প্রতিদিন অন্তত এক কাপ দই খাওয়া উচিত। যদি শুধু টক দই খেতে ভালো না লাগে, তাহলে ফলসহ খান অথবা যোগ করুন স্মুদিতে।

কুমড়োর বিচি : দুর্বলতা কাটাতে কুমড়োর বিচি আদর্শ স্ন্যাক। এতে রয়েছে উচ্চমানের প্রোটিন, ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ও ভিটামিন বি১, বি২, বি৫ ও বি৬। আরো রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, আয়রন ও কপারের মতো খনিজ। এসব পুষ্টি উপাদান রোগ প্রতিরোধক্ষমতা শক্তিশালী করতে, শক্তি জোগাতে ও দুর্বলতা কাটাতে একযোগে কাজ করে।

তরমুজ : তীব্র গরমের দিনগুলোয় ক্লান্তিবোধ করলে অথবা ব্যায়ামের পর ডিহাইড্রেশন হলে সহজেই শক্তি ফিরে পেতে পারেন তরমুজের মাধ্যমে। এতে রয়েছে প্রচুর পানি ও ইলেক্ট্রোলাইট, যা ডিহাইড্রেশন কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করে এবং ফের কর্মোদ্যমী করে তোলে। গরমের দিনে ফ্রিজে তরমুজের জুস রেখে দিন। তরমুজ রস করে তাতে লেবুর রস মেশান। খাওয়ার সময় যোগ করুন মধু।

ডিম : দৈহিক দুর্বলতা দূর করতে এক অসাধারণ খাবার ডিম। প্রতিদিন সকালে, না পারেন সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম সিদ্ধ করে খান। এতে আপনার দুর্বলতার সমাধান হবে।

দুধ : যেসব খাবারে বেশি পরিমাণ প্রাণিজ-ফ্যাট আছে এমন প্রাকৃতিক খাদ্য দৈহিক শক্তির উন্নতি ঘটায়। যেমন, খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি। বেশিরভাগ মানুষই ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চান। কিন্তু যদি দৈহিক শক্তির হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সবগুলোকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

মধু : দৈহিক দুর্বলতার সমাধানে মধুর গুণের কথা সবারই কম-বেশি জানা। তাই দৈহিক শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম পানিতে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন।

গ্রিন টি : এক কাপ গ্রিন টি কাটিয়ে তোলে শরীরের অবসন্নতা। বিশেষ করে, কাজ করার পর যে ধরনের দুর্বলতা বা ক্লান্তি দেখা দেয়। গ্রিন টিতে রয়েছে পলিফেনল— যা স্ট্রেস কমায়, শক্তি সঞ্চয় করে ও মনোযোগ বাড়ায়। এক কাপ গরম পানিতে এক চা চামচ গ্রিন টি দিয়ে ঢেকে রাখুন। পরে ছেঁকে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে খান।সূত্র: ব্রেকিংনিউজ/

Leave A Reply

Your email address will not be published.

x