শুরু হয়ে গেল ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-২০১৮’

0 227
অনাড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনে শুরু হয়ে গেল বিশ্বসুন্দরী খোঁজার ইভেন্ট ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৮’। ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে এফডিসিতে শুরু হয়েছে অডিশন রাউন্ডের কাজ। এমনটাই জানিয়েছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজ। এবারের আয়োজনে বিচারক হিসেবে থাকছেন জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী শুভ্রদেব,মডেল ও অভিনেত্রি তারিন, মডেল ও অভিনেতা খালেদ সুজন, মডেল ইমি, ব্যরিস্টার ফারাবী। অডিশন রাউন্ড থেকে পুরো প্রতিযোগিতায় তারাই বিচারকার্য পরিচালনা করবেন। তবে গ্র্যান্ড ফিনালেতে আইকন বিচারকরা যোগ দেবেন। এবারের মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রেজেন্ট করছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড। পাওয়ারড বাই স্পন্সর প্রেমস কালেকশন অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহের মধ্যেই মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের গ্র্যাণ্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশের চূড়ান্ত বিজয়ী ৭ ডিসেম্বর চীনে মূল পর্বে যোগদানের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন।
এদিকে একাধিক গণমাধ্যমে ‘ঘোষণা ছাড়া’ প্রতিযোগিতা শুরুর খবর ছাপা হওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করেন স্বপন চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘গোপনীয়তা ও নীরবে করার মতো কিছু নেই। মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ এর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে গেলেই আবেদন আর রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত প্রচারণা চোখে পড়বে।’
আয়োজক প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে এবার এরই মধ্যে আবেদনকারীর সংখ্যা ত্রিশ হাজার ছাড়িয়েছে। এবারের আয়োজনটির টেলিভিশন পার্টনার হিসেবে আছে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট টিভি এটিএন বাংলা। আয়োজন প্রসঙ্গে চ্যানেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘এমন একটি বড় কম্পিটিশনের সঙ্গে এটিএন বাংলা যুক্ত হওয়ায় ভালো লাগছে। আমি এ আয়োজনের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।’
এবারের আয়োজনের প্রস্তুতি প্রসঙ্গে স্বপন চৌধুরী আরো বলেন, ‘গতবার মিথ্যা তথ্য দেয়ার কারনে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছিল। এবার কেউ মিথ্যা তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করলে আমরা ১০ লক্ষ টাকা জরিমানার বিধান রেখেছি। পাশাপাশি আমাদের টিম এবং বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে তথ্য যাচাই বাছাই করছি।’
মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৮ আয়োজনের ক্ষেত্রে এটিএন বাংলাসহ সমস্ত স্পন্সরদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান অন্তর শোবিজ। তিনি বলেন, ‘এটা খুব আনন্দের যে অভিভাবকরা এসে তাদের মেয়েকে নিবন্ধন করাচ্ছেন। স্পন্সররা এগিয়ে এসেছেন। সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা। আর যার কথা না বললেই নয়, তিনি অন্তর শোবিজের এমডি নাসরিন চৌধুরী। অনুষ্ঠানের সাফল্য এবং স্বচ্ছতার পেছনে তার অবদানই সবচেয়ে বেশি।’
এবার আগে ভাগে বাংলাদেশের প্রতিযোগী চূড়ান্ত হয়ে যাবে। ফলে গ্রুমিং এর জন্য বেশি সময় পাওয়া যাবে। চীনে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় যাওয়ার আগে প্রায় তিন মাসব্যাপী নির্বাচিত প্রতিযোগীকে গ্রুমিং করানো হবে। যেন তিনি সাফল্যের সঙ্গে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করতে পারেন। এবারের অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করছেন ডিজে সনিকা। খুব শিগগিরই এটিএন বাংলায় এর প্রচার শুরু হবে।
বিডি সংবাদ টোয়েন্টিফোর ডটকম/

Leave A Reply

Your email address will not be published.